অনন্য এক রেকর্ড গড়েছেন জেমস অ্যান্ডারসন।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে অনন্য এক রেকর্ড গড়েছেন ইংলিশ অভিজ্ঞ ফাস্ট বোলার জেমস অ্যান্ডারসন। নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে ১৭তম ওভারে শেষ বলটি করার মাধ্যমে তিনি টেস্ট ক্রিকেটে পেস বোলার হিসেবে সবচেয়ে বেশি বল করার নতুন রেকর্ড গড়েছেন। ক্যারিয়ারে ১৩৬ ম্যাচ খেলে অ্যান্ডারসন এই রেকর্ড গড়লেন। টেস্টে এখন তার সর্বমোট বলসংখ্যা ৩০,০২০।

এর আগে এই রেকর্ড ছিল ক্যারিবীয় লিজেন্ড কার্টনি ওয়ালশের। অ্যান্ডারসনের আগে সব মিলিয়ে এই তালিকায় আছেন তিনজন বিশ্বসেরা স্পিনার : শেন ওয়ার্ন, অনিল কুম্বলে ও মুত্তিয়া মুরালিধারান।

২০১৫ সালে ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ টেস্ট উইকেট শিকারী হিসেবে অ্যান্ডারসন রেকর্ড গড়েছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিনি ৫০০তম টেস্ট উইকেট দখল করে এই রেকর্ড গড়েন। টেস্ট ম্যাচে বর্তমানে তার উইকেট সংখ্যা ৫৩১। টেস্ট ইতিহাসে পেস বোলার হিসেবে সর্বোচ্চ ৫৬৩ উইকেট দখল করে তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছেন অস্ট্রেলিয়ান গ্লেন ম্যাকগ্রা।

এবারের অ্যাশেজ সিরিজেও অ্যান্ডারসন ২৭.৮২ গড়ে সর্বোচ্চ ১৭টি উইকেট দখল করেছেন।

রেকর্ড গড়েছেন জেমস অ্যান্ডারসন

৩৪ বছর পর নিউজিল্যান্ডের এমন জয়!

ক্রিস্টচার্চে কাল শেষবেলায় ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি ইংল্যান্ডের হাতেই ছিল। অথচ আজ পঞ্চম দিন পুরো ম্যাচের মোড়ই ঘুরিয়ে দিলো নিউজিল্যান্ড। হেরে যাওয়া ম্যাচ ড্র করল। এই ড্র’টাই জয়ের আনন্দে ভাসালো তাদের। কারণ এর ফলে ৩৪ বছর পর দেশের মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতলো কিউইরা। একইসাথে ১৯ বছর পর ইংলিশদের বিপক্ষে জয়ের মুখ দেখলো তারা।

এর আগে দুই ম্যাচের সিরিজের প্রথম টেস্টে ৪৯ রানে জিতে নিউজিল্যান্ড।

আজ জয়ের জন্য ৩৮২ রানের কঠিন চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নামে কিউইরা। শুরুতেই জোড়া আঘাত হানেন স্টুয়ার্ট ব্রড। ১৭ রান নিয়ে আগের দিনের অপরাজিত থাকা রাভালকে কোনে রান না করতে দিয়েই সাজঘরে ফেরান এই পেসার। পরের বলেই তার শিকার হন কেন উইলিয়ামসন। এরপর রস টেইলর ও হেনরি নিকোলস ফিরেন আনলাকি থার্টিতে। ফলে চাপে পড়ে নিউজিল্যান্ড।

কিন্তু ইশ সোধির ধীরতায় সেই বিপদ কাটিয়ে উঠে নিউজিল্যান্ড। কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে নিয়ে অনেকটা পথ পাড়ি দেন তিনি। তবে এ জুটির ভাঙন ধরান মার্ক উড। অর্ধশত থেকে পাঁচ রান দুরে থাকতেই গ্র্যান্ডহোমকে ফেরান তিনি। তবে ক্রিজে ৫৬ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন সোধি। আট উইকেটে ২৫৬ রান করে নিউজিল্যান্ড।

এর আগে প্রথম ইনিংসে সব উউকেট হারিয়ে ৩০৭ করেছিল ইংল্যান্ড। ব্যাট করতে নেমে প্রথম ইনিংসে ২৭৮ রানে গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ৩৫২ তুলে ইনিংস ঘোষণা করে ইংলিশরা।

Leave a comment

Your email address will not be published.