‘আসল’ ম্যাচে ঠিকই জ্বলে উঠলেন গেইল

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিচ্ছিন্ন এক সৈনিক মনে হয় ক্রিস গেইলকে। কেননা ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোর্ডের সঙ্গে ঝামেলা আর ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে তার নিবিড় সম্পর্ক তাকে অন্যভাবে চেনায়।

প্রথম দুই প্রস্তুতি ম্যাচে রান পাননি। তবে ‘আসল’ ম্যাচে ঠিকই জ্বলে উঠলেন গেইল। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ঝড় তুলে সেঞ্চুরি করেছেন ক্যারিবিয়ান এই ব্যাটসম্যান।

ক্যারিবিয়ানদের বিশ্বকাপে নিতে চান বলে পাকিস্তান সুপার লিগে(পিএসএল) খেলছেন না গেইল। এই ত্যাগের মূল্য বুঝি প্রথম ম্যাচেই পেলেন প্রকৃতির কাছ থেকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বর্তমানে ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলতে জিম্বাবুয়েতে রয়েছে। সেখানে মঙ্গলবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের মুখোমুখি হয় জেসন হোল্ডারের নেতৃত্বে দলটি।

হারারের ওল্ড হারারিয়ানস মাঠে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নামে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুরুতে গেইল ছিলেন সতর্ক। প্রথম ১৮ বলে করেন ১১ রান। অষ্টম ওভারে মোহাম্মদ নাভিদের টানা তিন বলে দুটি ছক্কা ও একটি চারে শুরু হয় গেইল ঝড়।

প্রথমে এভিন লুইসকে (৪৯ বলে ৩১) সঙ্গে নিয়ে গড়েন ৮৮ রানের উদ্বোধনী জুটি। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে সিমরন হেটমায়ারের সঙ্গে ৬৬ বলে গড়েন ১০৩ রানের জুটি। এই জুটি গড়ার পথেই গেইল তুলে নেন সেঞ্চুরি।

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান ফিফটি ছুঁয়েছিলেন ৪৭ বলে। পরের পঞ্চাশ করতে লেগেছে ৩২ বল। সেঞ্চুরির পর রোহান মুস্তাফাকে হাঁকান টানা তিনটি ছক্কা।

দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে গেইল ৯১ বলে ১১টি ছক্কা ও ৭টি চারের সাহায্যে খেলেন ১২৩ রানের ঝড়ো ইনিংস। এটি গেইলের ২৩তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি।

আসল’ ম্যাচে ঠিকই জ্বলে উঠলেন গেইল

ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় ২০১৯ বিশ্বকাপের টিকিট পেতে দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে খেলতে হচ্ছে বাছাইপর্ব। মূল লড়াইয়ের আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচের একটিতে আফগানিস্তানের কাছে হারে ক্যারিবীয়রা। পরের ম্যাচে এই আরব আমিরাতের বিপক্ষেই অলআউট হয় মাত্র ১১৫ রানে, ম্যাচটি যদিও জেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দুই প্রস্তুতি ম্যাচে গেইলের রান ছিল ৯ ও ১৬। আজ মূল ম্যাচে ঠিকই হাসলো গেইলের ব্যাট। গেইল ফিরে গেলেও ৩০ ওভারে ২০০ পার করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ আছে বড় সংগ্রহের পথে।

ওয়ানডে ফরম্যাটে গেইল সেঞ্চুরি পেলেন প্রায় তিন বছরের বেশি সময় পর। সবশেষ ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে তিন অঙ্কের দেখা পান তিনি। সেদিন অবশ্য জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৪৭ বলে ২১৫ রানের দানবীয় এক ইনিংস খেলেন তিনি।

এই তিন বছরে অবশ্য গেইলের মোটে ম্যাচ খেলা হয়েছে ৯টি। মাঝে গত বছর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ব্রিস্টলে ৯৪ রান করেন তিনি।

জাতীয় দলের জার্সিতে ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সবশেষ সেঞ্চুরিটি করেন গেইল। মুম্বাইয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪৮ বলে ১০০ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি।

আর পেশাদার ক্রিকেটে গেইল গত বছর শেষ সেঞ্চুরিটি করেছেন। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে(বিপিএল) রংপুর রাইডার্সের হয়ে ১৪৬ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন তিনি।

২০১৪ সালের পর জাতীয় দলের হয়ে কোনো টেস্ট ম্যাচ খেলেননি গেইল।

Leave a comment

Your email address will not be published.