উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

আমি এখন কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিচ্ছিকথা বললে আমার ডিসটার্ব হবেসিদ্ধান্ত নিতে পারব না। 

কী সিদ্ধান্ত ? কী সিদ্ধান্ত সেটা আপনার জানার দরকার নাইউড়ালপঙ্খি আপনার শাড়ির দোকান বিষয়ক সিদ্ধান্ত নাব্যক্তিগত ব্যাপার। আমি কি আপনার সামনে থেকে চলে যাব ? চলে যাব ভাইজান ?যান, চলে যান। 

খায়রুল মিয়া উঠে গেলহাসান ঘড়ির দিকে তাকাল সাড়ে টা বাজেগুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত এই মুহূর্তে নিয়ে নিতে হবেহাতে সময় নেই। 

সিদ্ধান্ত একইলিশ মাছ কেনার জন্যে নিউ মার্কেটে যাওয়া যাবে নাইলিশ মাছ কিনতে গেলে যথাসময়ে চাকরির ইন্টারভিউতে হাজির হওয়া যাবে না

উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

সিদ্ধান্ত দুইইলিশ মাছ কাউকে দিয়ে কেনাতে হবেদায়িত্বটা দিতে হবে খায়রুল মিয়াকেএই লােকটি নিখুঁতভাবে দায়িত্ব পালন করবেসিদ্ধান্ত তিন, | যেহেতু মাছ কিনতে যাওয়া হচ্ছে না, হাতে সময় আছেএই সময়টা আনন্দে কাটানাের ব্যবস্থা করতে হবে টেলিফোনে নােরার সঙ্গে কথা বলা যায়তার একটা বিপদ অবশ্যি আছেনােরা বলে বসতে পারেকী করছ, এক্ষুণি চলে আস তাে

নােরা বললে অবশ্যই সব ফেলে দিয়ে চলে যেতে হবেইন্টারভিউ দেয়া হবে নাতখন মনে হবে কীসের ইন্টারভিউ, কীসের কী ? মুহিব ভুরু কুঁচকে আছেসে যে গভীর চিন্তায় ডুবে আছে এটা তার লক্ষণতার বুকে ধুকধুক শব্দ হচ্ছেধুকধুক শব্দ নিশ্চয়ই সারাক্ষণ তার বুকে হচ্ছেকিন্তু সে শুনতে পায় শুধু যখন তার ভুরু কুঁচকে থাকেব্যাপারটা কিশুধু তার একার ক্ষেত্রে ঘটে, না সবার ক্ষেত্রে ঘটে ? দি আল মদিনা রেস্টুরেন্টের মালিক খায়রুল মিয়ার বুকও কি গভীর চিন্তার সময় ধুকধুক করে

উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

খায়রুল মিয়া তার পাশে রাখা চিলমচিতে পানের পিক ফেলতে ফেলতে বলল, ডিমওয়ালা ইলিশ কিনবেন কী জন্যে ? ডিমওয়ালা ইলিশে স্বাদ হবে না। 

মুহিব বলল, স্বাদের দরকার নাই, আমার দরকার ডিমবড়ভাইজানের খায়েস হয়েছে ইলিশ মাছের ডিম খাবেন। 

তাহলে এক কাজ করি, ধূপখােলার বাজারে ইলিশ মাছের ডিম আলাদা বিক্রি হয়সেখান থেকে ডিম কিনে আনি আর আলাদা একটা ডিমছাড়া ইলিশ কিনিডিম আলাদামাছ আলাদা। 

যা ইচ্ছা করেন, শুধু মনে রাখবেন সকাল সকাল বাজার পৌছাতে হবেলিস্টে যা যা লেখা সব যেন যায়আরেকটা কথা, আমার সঙ্গে কথা বলার সময় দুবার তিনবার করে কিছু বলবেন নাশুধু শুধু সময় নষ্টআমি আপনার ঠোট নাড়া দেখেই বুঝতে পারি কী বলছেন। আপনি যান কই

আমি কোথায় যাই তা দিয়ে আপনার কোনাে দরকার নেইযা করতে বলছি করেন। কাঁচা সুপারি দিয়ে একটা পান খাবেন? হার্টের জন্যে ভালাে। 

উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

পান খাব না। আমার হার্টের ট্রিটমেন্টের প্রয়ােজন নেইহার্ট ভালাে আছেবকরি লাদির ট্রিটমেন্ট চলছে। খায়রুল মিয়া গলা নামিয়ে বলল, ভাইজান, আজ সন্ধ্যার পর কি কোনাে কাজ আছে

কেন ? আমি যে ফ্ল্যাটটা কিনলাম আপনাকে দেখাতামমনে খায়েশ ছিলদেখি, যদি সময় করতে পারিফার্নিচার কিনি নাইআপনাকে সাথে নিয়ে কিনবআমাকে সাথে নিয়ে কিনবেন কেন

কোনটা ভালাে কোনটা মন্দ এটা তাে আমি বুঝব নাবুঝেন না ভাইজান আমি পথের কাঙাল ছিলামপঞ্চাশ টাকা ভাড়ার বস্তির ছাপড়ায় থাকতামএখন পয়সা হয়েছে, কিন্তু মনের কাঙাল ভাব দূর হয় নাই। দেখি, যদি সময় করতে পারি...

উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

খুবই খুশি হবাে ভাইজানরাতে আমার সাথে খানা খাবেনকী খাবেনবলেনখিচুড়ি আর মুরগি ঝালাই করিমুরগি ঝালাই মজনু বাবুর্চিকে দিয়ে করাবএকবার খেলে বাকি জীবন আর ভুলতে পারবেন নাবলি মজনু বাবুর্চিকে ? বলি ভাইজান, বলি

মুহিব প্রশ্নের জবাব না দিয়ে রেস্টুরেন্ট থেকে বের হলােএখানে থাকা মানেই খায়রুল মিয়ার বকবকানি শােনাসে বকবক করেই যেতে থাকবেঅতি ব্যস্ত মানুষদের বকবক করার স্বভাব থাকে নাএই লােকটার আছেতার গলা দিয়ে শব্দ বের হয় নাতারপরেও সে কথা বলতেই থাকে। 

খায়রুল মিয়ার টেলিফোনের দোকান থেকে মুহিব নােরাকে টেলিফোন করলপ্রথমবার রিং হতেই নােরা ধরলহ্যালােশব্দটা এত সুন্দর করে বলল যেন এটা কোনাে ইংরেজি শব্দ না, এটা বাংলা গানের সঞ্চারীমুহিব বলল, কী খবর নােরা

নােরা বলল, আপনি কে বলছেন জানতে পারি কি

উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

বুকে ধাক্কা লাগার মতাে বাক্যএখনাে কি নােরা তার গলা আলাদা করে চিনতে পারে না? নাকি সে চিনেও ভান করে চিনতে পারছে নাঅবশ্যি এও হতে পারে যে আপনি কে বলছেন জানতে পারি কিবাক্যটি নােরা অভ্যাসবশত বলেহয়তাে খুব ছােটবেলায় তাকে শেখানাে হয়েছেকেউ টেলিফোন করলে প্রথমেই বলবেআপনি কে বলছেন জানতে পারি কি? যে টেলিফোন করেছে তার পরিচয় জানার পর অন্য কথা বলবেছােটবেলার অভ্যাস এখনাে রয়ে গেছে। 

নােরা, আমি মুহিব আচ্ছা, তুমি ? কী করছ ? কিছু করছি না| নােরা খিলখিল করে হাসতে হাসতে বলল, আমি কী করছি বলাে তাে ? তুমি কল্পনা করতে পারবে না এমন একটা জিনিস করছি। 

সেটা কী

নােরা হাসি থামিয়ে গম্ভীর গলায় বলল, সিগারেট খাচ্ছিসকালে চায়ের সঙ্গে প্রথম সিগারেট খেয়েছিএখন তােত প্রায় দশটা বাজছে, এর মধ্যে চারটা সিগারেট খেয়ে ফেলেছিচতুর্থটা এখনাে শেষ হয় নিহাতে আছে। 

মুহিব বিস্মিত গলায় বলল, সিগারেট খাচ্ছ কেন? | খেয়ে দেখছি কেমন লাগে। তেমন কোনাে গুড ফিলিং হচ্ছে না, তবে গলাশুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছেখুব পানির পিপাসা হচ্ছেএক জগ পানি খেয়ে ফেলেছি, তারপরেও পানির পিপাসা যাচ্ছে না। 

উড়ালপঙ্খি-পর্ব-(৪)-হুমায়ুন আহমেদ

মুহিব বলল, সত্যি সিগারেট খাচ্ছ

নােরা বলল, হ্যানা খেলে মিথ্যা করে কেন বলব ? এই মুহূর্তে আমি কী করছি মন দিয়ে শোেনআমি ডিভানে শুয়ে আছিআমার হাতে একটা বইবইটার নাম Easy Hypnosis. বাবাকে বলে দিয়েছিলাম আমেরিকা থেকে আসার সময় আমার জন্যে মেসমেরিজম আর হিপনােটিজমের বই আনতে বাবা হিপনােটিজমের দুটা বই এনেছেনএকটা শেষ করে ফেলেছিদ্বিতীয়টা পড়ছিআঠারাে পৃষ্ঠা পড়া হয়ে গেছে

Leave a comment

Your email address will not be published.