এক নজরে দেখে নিন হাশিম আমলার রেকর্ডের কীর্তি –

বিরাট কোহলি, জো রুট, এবি ডে ভিলিয়ার্স, কেন উইলিয়ামসন এবং স্টিভ স্মিথ- তাদের মধ্যে মিল কোথায়? সারা বিশ্বে এই হার্ডহিটারদের ব্যাটিং নিয়ে মিডিয়ায় যে আলোচনা হয় আর কোনো ব্যাটসম্যানের জন্য তেমনটা হয় না। কিন্তু এদের মধ্যে নিঃশব্দে একজন রেকর্ড বইয়ে নিজের নাম তুলে চলেছেন। একদিনের ক্রিকেটে দ্রুততম দুই হাজার থেকে সাত হাজার রান করে রেকর্ড বইয়ে নিজের নাম পাকা করে ফেলেছেন। তিনি হাশিম আমলা।

দক্ষিণ আফ্রিকার এই ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলির চেয়ে কম সংখ্যক ম্যাচেই সাত হাজারি ক্লাবে প্রবেশ করেছেন।

২৫ ম্যাচের ২৪তম ইনিংসে এক হাজার রান তুলেছেন তিনি। আর কোহলি ২৭ ম্যাচ খেলে ২৪তম ইনিংসে এই রান করেন।

তবে সবচেয়ে বেশি দ্রুত তিনি প্রবেশ করেছেন দুই হাজারি ক্লাবে। ১৬ ইনিংস খেলেছেন এক হাজার রান তুলতে! ৪০তম ইনিংসেই দুই রান করে ফেলেছেন তিনি। আর এই কাজটি বিরাট করেছেন ৫৩তম ইনিংসে!

একই অবস্থা তিন হাজার রানের বেলায়ও! ৫৭তম ইনিংসে করেছেন তিন হাজার রান। আর বিরাট ৭৫তম ইনিংসে।

এর ধারাবাহিকতা রয়েছে সাত হাজার রান পর্যন্ত। ১৫৩ ম্যাচের মধ্যে ১৫০তম ইনিংসে সাত হাজার রান করেন তিনি। আর বিরাট সেটি করেছেন ১৭৫তম ইনিংসে।

এক নজরে দেখে নিন তার রেকর্ডের কীর্তি –

আপাতত ১৬১ ইনিংসে ৭৫৩৫ রানে দাঁড়িয়ে রয়েছেন তিনি। মাঝে তার সময়টা বিশেষ ভালো যায়নি। ঘুরে দাঁড়িয়েছেন দারুণভাবে।

 

এলগারের বিশ্বরেকর্ড

অপরাজিত থেকে বিশ্বরেকর্ড গড়লেন দক্ষিণ আফ্রিকার ওপেনার ডিন এলগার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ডেসমন্ড হেইন্সের সমান তৃতীয়বারের মতো টেস্ট ফরম্যাটে ব্যাট হাতে ইনিংস শুরু করে শেষ পর্যন্ত টিকে ছিলেন তিনি। কেপটাউনে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চলমান টেস্ট সিরিজে তৃতীয় ম্যাচে প্রথম ইনিংসে ওপেনার হিসেবে খেলতে নেমে ১৪১ রানে অপরাজিত থাকেন এলগার। ফলে বিশ্বরেকর্ডের তালিকায় নাম তুললেন তিনি।

টেস্ট ক্যারিয়ারে তৃতীয়বার এমন কৃতিত্ব গড়লেন এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। সর্বোচ্চ তিনবার করেছেন হেইন্সও। ১৯৮৬ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত নিজের তিনটি ইনিংসে অপরাজিত ছিলেন হেইন্স। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে এখন পর্যন্ত ৪৮টি টেস্ট খেলেছেন এলগার। এর মধ্যে সর্বশেষ ২৭টি টেস্টের মধ্যে তিনবার ইনিংসে ওপেনার হিসেবে নেমে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন তিনি। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে ডারবানে বক্সিং-ডে টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ক্যারিয়ারে প্রথমবার ওপেনার হিসেবে খেলতে নেমে দলের ইনিংস শেষেও ১১৮ রানে অপরাজিত থাকেন এলগার। এরপর চলতি বছরের জানুয়ারিতে ভারতের বিপক্ষে জোহানেসবার্গে অপরাজিত ৮৬ রান করেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ছয়জন ব্যাটসম্যান আটবার এমন ইনিংস খেলেন। এর মধ্যে এলগারই তিনবার। টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আটবার আটজন ব্যাটসম্যান ইনিংস শুরু করে ইনিংস শেষে অপরাজিত থাকেন। এই তালিকায় সর্বশেষ অন্তর্ভুক্ত হলেন এলগার।

টেস্ট ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দু’বার করে ইনিংস শুরু করে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন অস্ট্রেলিয়ার বিল উডফুল-বিল লরি, ইংল্যান্ডে লেন হটন ও নিউজিল্যান্ডের গ্লেন টার্নার। ইনিংস শুরু করে শেষ পর্যন্ত একবার করে অপরাজিত থাকা ব্যাটসম্যানদের তালিকায় আছে বাংলাদেশের ওপেনার জাভেদ ওমর গুল্লু। ২০০১ সালে বুলাওয়েতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওপেনার হিসেবে খেলতে নেমে শেষ পর্যন্ত ৮৫ রানে অপরাজিত ছিলেন জাভেদ ওমর বেলিম গুল্লু।

Leave a comment

Your email address will not be published.