তিথির নীল তোয়ালে-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

দুপুরবেলা চাইনীজ রেস্টুরেন্টগুলি ফাঁকা থাকেআজ আরাে ফাঁকাদোতলার হলঘরে একটা লােকও নেইতিথি বলল, অন্য কোথাও চল তাে বাবাফাঁকা ঘরে চাহনীজ খেতে ভাল লাগে না। 

তিথির নীল তোয়ালে

ফাঁকাই তাে ভালনিরিবিলিহােটেলের নিরিবিলি অসহ্য লাগেহােটেল থাকবে গমগমা, লােকজনে ভর্তিতাহলে চল লােকজনে ভর্তি গমগমা হােটেল খুঁজে বের করিচল যাই গাড়ি ছেড়ে দাও বাবাআমরা রিকশা করে ঘুরব।” 

জাফর সাহেব গাড়ি ছেড়ে দিলেনরিকশায় উঠেই তিথি বলল, তুমি কি : চাইনীজ খাওয়া নিয়ে এই গল্পটা শুনেছ 

‘কোন গল্প ?” 

ঢাকা শহরে এক লােক হঠাৎ আলাউদ্দিনের চেরাগ হাতে পেয়ে গেলচেরাগে ঘসা দিতেই দৈত্য এসে উপস্থিতদৈত্য বলল, জাহাপনা, কি চাই বলুনহুকুম করুনহুকুম করলেই হুকুম তামিল হবে। 

লােক বলল, প্রচণ্ড খিদে পেয়েছেকিছু খাবার আনদৈত্য বলল, কি খাবার খাবেন হুকুম করুন হুজুরে আলাচাইনীজ খাবদৈত্য অস্বস্তির সঙ্গে বলল, সত্যি চাইনীজ খাবেন? অবশ্যই খাবতােমার অসুবিধা আছে ? জি নাতবে একটু সময় লাগবেলাগুকখাবার যেন ফ্রেশ হয়অবশ্যই ফ্রেশ হবে” 

তিথির নীল তোয়ালে-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

লােকটা খাবার জন্যে অপেক্ষা করছেঘণ্টা খানেক পর দৈত্য ঘাড়ে করে এক আধবুড়াে চাইনীজ নিয়ে উপস্থিতদৈত্য বলল, হুজুরে আলা, চাইনীজ খেতে চেয়েছেনচাইনীজ ধরে নিয়ে এসেছিএকেবারে পিকিং থেকে এনেছি বলে বিলম্ব হয়েছেএখন ব্যাটাকে খানআমি দেখি। 

জাফর সাহেব শব্দ করে হাসলেনতিথি হাসছেরিকশাওয়ালা ঘাড় ঘুরিয়ে দেখছেজাফর সাহেব তাঁর হাসি থামাতে পারছেন নাযতবারই হাসি থামাতে যানততবারই চোখের সামনে ভেসে উঠে আধবুড়াে চাইনীজটার হতভম্ব মুখ। 

তিথি বলল, বাবা থাম তােঅনেক হেসেছ। 

জাফর সাহেব হাে হাে, হা হা করে হাসতেই লাগলেন| প্লীজ বাবা, থামতােমাকে নিয়ে তাে ভাল যন্ত্রণায় পড়া গেলআগে জানলে কে তােমাকে হাসির গল্প বলতাে

মা, আরেকটা গল্প বল তােহাে হো হােহি হি হি। 

তিখি অবাক হয়ে বাবাকে দেখছেআশ্চর্য, এত হাসি ! তিথি তার বাবাকে এমন করে কখনো হাসতে দেখেনিতাঁর শরীর ভাল তো? অসুস্থ মানুষ মাঝে মাঝে এমন করে, সামান্য কারনে প্রচুর হাসেপ্রচুর কাদেতিথি প্রসঙ্গ পাল্টাবার জন্যে বলল, বাবা, নুরুজ্জামান সাহেবকে যে নিয়ে যাব উনি থাকবেন কোথায় ? ধর, এক রাত আমাদের সিলেট থাকতে হলতখন কি করব? উনাকে কি কোন হােটেলে পাঠিয়ে দেব? | জাফর সাহেব হাসি থামাতে পারছেন নাঅনেক কষ্টে হাসির ফাঁকে ফাঁকে বললেন, গাধাটাকে ধাক্কা দিয়ে ট্রেন থেকে ফেলে দিবি হি হি হি। 

তিথির নীল তোয়ালে-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

কি কথার কি উত্তর ! কি হয়েছে বাবার?

নুরুজ্জামান মুগ্ধ চোখে চিড়িয়াখানার জলাধারের পাশে দাঁড়িয়েজলহস্তী পরিবারের কাণ্ডকারখানায় সে মুগ্ধ বিস্মিতকিছুক্ষণ পর পর সে বলছে, কি আজিব জানােয়ার !তার ইচ্ছা করছে কলা বা বাদাম কিনে এদের খাওয়ায়বাইরে সাইনবাের্ড ঝুলছে চিড়িয়াখানার পশুদের কিছু খাওয়াবেন নানােটিশ না থাকলে সে অবশ্যই কলা বা এই জাতীয় কিছু কিনে খাওয়াতোএরা ফলমূল খায় কিনা কে জানেপানির জানােয়ার, মাছ খাওয়ারই কথাতবে পানির জানােয়ার হলেও শুকনাতেও এরা অনেকক্ষণ থাকে

কাজেই স্থলভূমির খাবার খেতেও পারেকাকে জিজ্ঞেস করা যায়? চিড়িয়াখানার লােকজন নিশ্চয়ই জানবেননুরুজ্জামান চিড়িয়াখানার লােকজনদের খোঁজে বের করততার হাতে সময় বেশি নেইসন্ধ্যা টায় মন্ত্রী সাহেবের সঙ্গে এপয়েন্টমেন্ট হয়েছেপি. সাহেবের স্ত্রী ব্যবস্থা করে দিয়েছেনকথা ছিল এপয়েন্টমেন্ট হয়ে গেলে পি, এ সাহেব টেলিফোন করে জানাবেনতা জানান নিটেলিফোন নাম্বার হারিয়ে ফেলেছিলেননুরুজ্জামান আবার খোঁজ নিতে গিয়ে ব্যাপারটা জানলভাগ্যিস খোঁজ নিতে গিয়েছিল! মিনিস্টার সাহেবের আবার জাপান চলে যাবার কথা। 

জলহস্তী কি খায় এই তথ্য নুরুজ্জামান বের করতে পারছে নাএই পর্যন্ত দুজনকে জিজ্ঞেস করলপ্রথমজন তাকে রীতিমত অপমানই করলসে বলল, জলহস্তী কি খায় তা দিয়ে আপনার কি দরকার? আপনি কি জলহস্তী

দ্বিতীয়জন জাতীয় অপমান করল নাসে বলল, জানি নাসে বালতিতে করে কুচি কুচি করে কাটা লাউ নিয়ে যাচ্ছেকাকে খাওয়াবে কে জানে? লাউ কে খায়

তিথির নীল তোয়ালে-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

নুরুজ্জামান ঠিক করল আরেকদিন এসে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বসে থাকবেএর মধ্যে একসময় না একসময় জলহস্তীকে খাবার দেবেইতখন দেখে নিলেই হবেআজ থাকা যাবে নামিনিস্টার সাহেবের সঙ্গে দেখা করতে হবেএক্ষুণি রওনা দেয়া দরকার। 

শিক্ষামন্ত্রী চৌধুরী নবী নেয়াজ খান বিরক্ত মুখে বসে আছেনতাঁর আলসার আছেবিকেলের পর থেকে আলসারের ব্যথাটা জানান দেয়ব্যথা তেমন তীব্র নয়, তবে অস্বস্তিকরবিকেল থেকে আলসারের ব্যথার থেকেও তীব্র ব্যথা শুরু হয়সেটা হল দর্শনার্থীর যন্ত্রণাদেশটার কি হয়েছে কে জানে? অতি তুচ্ছ বিষয়নিয়ে আজকাল লােকজন মন্ত্রীর কাছে চলে আসে। 

গতকাল একজন এসেছিল তার টেলিফোনে বিল বেশি হচ্ছেবিল বেশি হচ্ছে তাে তিনি কি করবেন? তিনি টেলিফোনের মন্ত্রী নাতার হল শিক্ষা দপ্তরশিক্ষা সংক্রান্ত ব্যাপারে তার কাছে আসা যায়তাও ছোটখাট কিছু নিয়ে নাবড় কিছু তা আসবে নাতুচ্ছ সব ব্যাপার নিয়ে আসবে সময় নষ্ট করবেগত সপ্তাহে একজন আসল ক্লাস ফোরের ধর্ম বইয়ে ভুল আছে এই খবর নিয়েএকা আসে নিসঙ্গে বিরাট দলতুমুল হৈচৈ। 

স্যার বলুন, আপনি বলুন, আরবিতে কি আছে?” 

Leave a comment

Your email address will not be published.