তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(১৯) হুমায়ূন আহমেদ

 খিচুড়ি বসায়ে দেব । 

তাহলে এক কাজ কর রান্না শুরু করআর আমি ইমাম সাহেবের ঘরখুঁজে দেখি চিঠিপত্র থেকে ঠিকানা পাওয়া যায় কিনাকেউ কি খুঁজে দেখেছে

তেঁতুল বনে জোছনা

বলতে পারি নাসবেই ছিল মন্ত্রী নিয়া ব্যস্ত। 

ডাক্তার হারিকেন হাতে ঘরে ঢুকে পড়লচৌকিতে কালাে কম্বলে একটা মানুষ পুরােপুরি ঢাকাতার শরীর নষ্ট হতে শুরু করেছেতীব্র না হলেও ভােতা ধরনের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছেমেডিকেল কলেজে আনিসের এক মেডিসিনের প্রফেসর জোবেদ আলি হঠাৎ হঠাৎ বিষয়ের বাইরে কথা বলতেনগন্ধ বিষয়ে একবার দীর্ঘ এক বক্তৃতা দিলেন যে বক্তৃতা সিলেবাসে নেইবাবারা শােন, ডাক্তার হবার আগে নাক তৈরি করগন্ধ নিতে শেখসব কিছুর গন্ধ আছে

জীবন্ত মানুষের গন্ধ আছেআবার মৃত মানুষেরও গন্ধ আছেঅসুখের গন্ধ আছেটাইফয়েড রােগীর গা থেকে এক রকম গন্ধ বের হয় আবার কালাজ্বর রােগীর গা থেকে অন্য রকম গন্ধ বের হয়রােগের ডায়াগনােসিসে এখন গন্ধ ব্যবহার করা নাকিন্তু আমি লিখে দিচ্ছি গন্ধনির্ভর ডায়াগনােসিস শুরু হবেপ্রাচীন ভারতের দুই মহান চিকিৎসক চরক এবং শুশ্রুত দুজনই রোগের ডায়াগনােসিসে গন্ধের গুরুত্ব দিয়েছেনভারতের ডাঃ বিধান চন্দ্র রায়ও দাবি করতেন তিনি রােগের গন্ধ পেতেন। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(১৯) হুমায়ূন আহমেদ

জোবেদ আলি স্যারের মাথা কিঞ্চিৎ খারাপ ছিলএকদিন ভালােমানুষের মতাে ক্লাস নিয়ে নিজের ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে একগাদা ডরমিকম ট্যাবলেট খেয়ে মারা গেলেনমৃত্যুর আগে নােট লিখে গেলেননােটটা অন্যদের মতাে

তিনি অন্যদের মতাে লিখলেন নাআমার মৃত্যুর জন্যে কেউ দায়ী নাতিনি লিখলেনআমার মৃত্যুর জন্যে সবাই দায়ীআমি নিজেও দায়ী। 

ইমাম সাহেব কি এরকম কোনাে কিছু লিখে রেখে গেছেনতার স্ত্রীর কাছে কোনাে চিঠি ? তার দুই কন্যার কাছে আবেগের কিছু লাইন। 

ঘরে আসবাবপত্র খুবই অল্পটেবিলের ওপর কিছু হাদিসের বইমেশকাত শরীফ, বােখারি শরীফটেবিলের ড্রয়ারে কিছু চিঠি পাওয়া গেলসবই ইমাম সাহেবের বড় মেয়ে সকিনার লেখা। কোনাে চিঠিতেই ঠিকানা নেই। অন্যের চিঠি পড়ার মানসিকতা আনিসের নেইতারপরেও একটা চিঠি পড়ে ফেললসকিনা তার বাবাকে লিখেছে— 

আপনি শরীরের দিকে খিয়াল রাখিবেনআপনার জন্য সবসময় আমার মন কাঁদেপ্রতি রাতে আজেবাজে খােয়াব দেখিবাবাগাে আমি আপনার পায়ে ধরি আপনি নিজের প্রতি যত্ন নেনআপনার বুকে ব্যথা হয়কেন আপনি | ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলেন না ?.... আনিস ছােট্ট করে নিঃশ্বাস ফেললইমাম সাহেবের সঙ্গে তার অনেকবারই দেখা হয়েছেতিনি তার বুকের ব্যথার কথা কখনাে বলেন নিমৃত্যু এক দিক দিয়ে ভালাে যাবতীয় যন্ত্রণার অবসানএই মানুষটা এখন আর বুকের ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছে না। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(১৯) হুমায়ূন আহমেদ

মতিকে একা রেখে আনিস তার বাসার দিকে রওনা হলােরাত অনেক হয়ে গেছে তারপরেও তাকে জহির খাঁ সাহেবের বাড়িতে যেতে হবেতিনি জরুরি খবর পাঠিয়েছেনআনিস মনে মনে আশা করছে সে গিয়ে দেখবেজহির খাঁ বাতি নিভিয়ে ঘুমিয়ে পড়েছেনমানুষটার সঙ্গে এই মুহূর্তে কথা বলতে ইচ্ছা করছে না। 

জহির খা জেগেই ছিলেনতার চক্ষু রক্তবর্ণ প্রচুর মদ্যপান করলে তার চোখ রক্তবর্ণ হয়ে যায়আজ সারাদিন নানা উত্তেজনার ভেতর দিয়ে তাকে যেতে হয়েছেএখন উত্তেজনা কমানোের ব্যবস্থা নিয়েছেনডাক্তারকে দেখে তিনি আনন্দিত গলায় বললেনতুমি ছিলা কোথায় ? বাসা তালা বন্ধতিনবার তােমার কাছে লােক পাঠায়েছি। 

আনিস কিছু বলল নাসে ইমাম সাহেবের বাড়িতে গিয়েছিল এই কথাটা তার বলতে ইচ্ছা করছে না। 

এখন আবার তােমার খোঁজে বদিরে পাঠায়েছি।  

ডেকেছেন কী জন্যে ? শরীর খারাপ

শরীর কিঞ্চিৎ খারাপ কিন্তু তার জন্যে তােমাকে ডাকি নাইগল্পগুজব করার জন্যে ডেকেছিবস। 

আনিস বসলজহির খা পানের বাটা থেকে পান নিয়ে মুখে দিতে দিতে বললেনআজকে দিনটা যে পার করতে পারছি তার জন্যে আল্লার দরবারে শুকরিয়াসকাল সাতটার সময় টিএনও সাহেব এসে বললেন মন্ত্রী আসবেআপনার বাড়িতে একটু চায়ের এন্তেজাম করতে হবেদেখ অবস্থা। এদিকে একজন আবার ফাঁসিতে ঝুলে পড়েছেফাঁসিতে কারা ঝুলে ? মেয়েছেলে ঝুলে বিবাহ হয় নাই পেটে সন্তান চলে এসেছেতখন ফাঁসিতে ঝুললেও একটা কথাআর তুই এক বুড়াঅন্যায় করেছিস, শাস্তি হয়েছে; ফুরায়ে গেছেতার জন্যে ফাস নিতে হবে। ডাক্তার কি লাল পানি একটু খেয়ে দেখবে? নার্ভ ঠাণ্ডা করেহালকা করে দেইবরফ দিয়ে খাও ভালাে লাগবে। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(১৯) হুমায়ূন আহমেদ

জ্বি নাআপনি খান। 

আমি তাে খাচ্ছিইএক পেগ করে খাইমুখটা যখন পানশে হয়ে যায় তখন একটা পান খাইমুখ ঠিক করিতারপর আবার একটুশােন ডাক্তার, তুমি হেনার ব্যাপারে কী করলা

কোন ব্যাপারে কথা বলছেন? তােমারে বললাম না, হেনার জন্যে পাত্র দেখ। খরচ আমারছবিও তাে তুলে পাঠায়েছিছবি পাও নাই

ছবি পেয়েছিপাত্রের সন্ধান করপাত্র যদি ক্যাশ টাকা চায় তাও দিব। 

আনিস চুপ করে রইলজহির খা গলা উঁচিয়ে বললেনহেনা কই ? আমাদের খাওন দাও। 

আনিস বলল, আমি এখন খাব না। জহির খাঁ বললেন, খাবে না কেন? খেয়ে এসেছ

জ্বি নাসারাদিন বাইরে ঘােরাঘুরি করেছি

 গােসল করে তারপর খাবআমি নােংরা শরীরে কিছু খেতে পারি না। 

আমার এখানে গােসল করগরম পানি করে দিবেসাবান দিয়ে ডলা দিয়ে গােসল করআমার ধােয়া লুঙ্গি আছেঅসুবিধা কিছু নাই। 

তার দরকার নেইআচ্ছা খাবার দিতে বলুন, গােসল পরে করব। 

জহির খা রাগী গলায় বললেন, গােসল পরে কেন করবা এখনই করবাহেনারে বলতেছি সে গরম পানি করে দিবেশরীরে সাবান ডলে দিবে তুমি তাে বাইরের কেউ নাতুমি আমার নিজের লােক। 

আনিস হতভম্ব হয়ে গেলনেশাগ্রস্ত মানুষের কোনাে কথা ধরতে নেইতারা কী বলছে নাবলছে তার ওপর তাদের কোনাে নিয়ন্ত্রণ থাকে নাতারপরেও জহির খাঁ এইসব কী বলছেন ? হেনা কেন গায়ে সাবান ডলে দেবে

জহির খা মুখের পান ফেলে দিয়ে তার বাঁ পাশে রাখা গ্লাস এক চুমুকে শেষ করে মুখে আরেকটা পান নিয়ে ঝুঁকে এসে বললেনএকা একা গােসলের সমস্যা জান ? পিঠে সাবান দেওয়া যায় নাপিঠে সাবান দেবার জন্যে লােক লাগেএতে দোষের কিছু নাই। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(১৯) হুমায়ূন আহমেদ

আনিস শান্ত গলায় বলল, আমি গোসল করব নাআপনি খাবার দিতে বলুন। 

জহির খা কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে হেনাকে ডেকে খাবার দিতে বললেন। 

হেনা মেয়েটাকে আজ আরাে সুন্দর লাগছেসে আজ শাড়ি পরে নি, জরি দেওয়া ঘাঘড়া জাতীয় পােশাক পরেছে

Leave a comment

Your email address will not be published.