তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

ঘাঘড়ার রং কালাে বলে হেনার গায়ের রং খুব ফুটেছেলম্বা বেণি করেছেচোখে কাজল দিয়েছেগায়ে গয়নাও আছেপ্রথম দিনে গায়ে কোনাে গয়না ছিল না। 

তেঁতুল বনে জোছনা

জহির খা আনিসের দিকে তাকিয়ে আছেনতার চোখের দৃষ্টি তীক্ষ্ণনেশাগ্রস্ত মানুষ এমন তীক্ষ্ণ চোখে তাকাতে পারে নাতাদের চোখের মণি ডাইলেটেড থাকেআনিসের মনে হলাে প্রচুর মদ্যপান করা সত্ত্বেও এই লােকটি মাতাল নানিজের ওপর তার পূর্ণ দখল আছেসে কি আনিসকে নিয়ে কোনাে খেলা খেলছে ? খেলােয়াড় মানুষ চুপ করে থাকতে পারে নাতাকে সব সময় খেলতে হয়প্রতিপক্ষ না পেলে তারা প্রতিপক্ষ তৈরি করে নেয়। 

ডাক্তার

তুমি আমার দিকে তাকায়ে আছ কেন? কী দেখ ? কিছু দেখি নাইমামের মৃত্যুর জন্য তুমি কি মনে মনে আমাকে দায়ী করছ

প্রত্যক্ষভাবে আপনি দায়ী নাতবে পরােক্ষভাবে আপনার ভূমিকা আছে। 

জহির খাঁ সােজা হয়ে বসলেন। শীতল গলায় বললেনএখন যে কথাটা তুমি বললাএরকম কথা আর বলবা না। একটা কথা সব সময় খেয়াল রাখবাআমি দুষ্ট প্রকৃতির লােক এবং রাগী লােকদুষ্টু লােক সাধারণত রাগী হয় না, তবে আমি রাগীনাও খাওয়া দাওয়া কর । 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

হেনা হাত ধােয়ার পানি এনেছেআনিস হাত ধােয়ার জন্যে বারান্দায় গেলহাত ধুতে গিয়ে তার মনে হলােপ্রচণ্ড ক্ষিধে পেয়েছে। 

আনিস একা খাচ্ছেপ্লেটে খাবার তুলে দেয়ার জন্যে হেনা পাশে দাড়িয়ে আছেসে গায়ে কোনাে সুগন্ধি মেখেছেখাবারের গন্ধের সঙ্গে এই গন্ধ যাচ্ছে। 

আয়ােজন ভালােমন্ত্রীর জন্যে করা আয়ােজন খারাপ হবার কথা নারুই মাছের বড় পেটিপােলাওখাসির মাংসের রেজালা। আস্ত মুরগির রােস্ট। 

আনিস আরাম করেই খাচ্ছেমনে হচ্ছে জ্বর নেমে গেছেজ্বর নেমে গেলে খুব খিদে পায়। 

ডাক্তার

জ্বি। 

খানা কেমন হয়েছে ? ভালাে হয়েছে। 

গন্যমান্য সবাইরে বলেছিলামসবাই এসেছিল, শুধু একজন আসে নাইবল দেখি কে আসে নাই

বলতে পারছি না। 

আজিজ মিয়া আসে নাইখবর নিয়েছি সে গিয়েছে গৌরীপুরগৌরীপুর কেন গিয়েছে জান

জ্বি না। 

আড়ংএর জন্যে বঁড় কিনতে গিয়েছেআমার সাথে পাল্লা দিতে চায় আমি ষাড় কিনেছি তারও ষাঁড় কিনা লাগবেদেখি সে কি ষাঁড় কিনে। 

জহির খা আরেকটা পান মুখে দিলেন। 

ইমাম সাহেবের কবর হলাে তার পরদিন সন্ধ্যায়কবর ঠিক না, গর্ত খুঁড়ে মাটি চাপা দেওয়ামধ্যনগর গ্রামের হুজুর ফতােয়া দিলেন অপঘাতে মৃত্যুর জানাজার বিধান নাইলাশ কবরে নামানাের সময় অনেকেই চোখের পানি ফেলেইমাম সাহেবের ক্ষেত্রে শুধু মতি ভেউ ভেউ করে কিছুক্ষণ কাঁদলগাঁজার নেশার কারণে ঘটনাটা ঘটলছয় পুরিয়া শেষ হবার পর সে আরাে চারটা পুরিয়া এনেছেএবারে দাম বেশি পড়েছেচার পুরিয়ার জন্যে পঞ্চাশ টাকা দিতে হয়েছেটাকাটা সে পেয়েছে ইমাম সাহেবের ভােষকের নিচে। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

ট্রেন দুঘণ্টা লেট। 

পৌছার কথা চারটায়, পৌছল ছটায়নবনীর খুব বিরক্তি লাগছিলতার ফার্স্ট ক্লাসের টিকিটকামরায় আর যারা আছে তাদের মনে হচ্ছে কারােরই টিকিট নেইএকজন আবার উঠেছে ছাগল নিয়েট্রেনের বাথরুমের দরজা বন্ধ হয় নামাঝে মাঝে এমন শব্দ হয় মনে হয় দরজা ভেঙে পড়ে যাচ্ছেযতই সময় যাচ্ছে ততই তার মেজাজ খারাপ হচ্ছেমেজাজ খারাপের চূড়ান্ত পর্যায়ে ট্রেন থামলনবনী ট্রেনের জানালা দিয়ে মাথা বের করে হঠাৎ করেই মুগ্ধ হয়ে গেলকী সুন্দর দিন! পিচকারি ভর্তি হলুদ রঙ কেউ যেন বাতাসে ছিটিয়ে দিচ্ছে

আকাশের মেঘ সূর্যের আলােকে কিছু একটা করেছেদিনের শেষে আলাে যেখানেই পড়ছে সােনা রঙ হয়ে যাচ্ছেরঙের গন্ধ পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছেনবনীর মন খারাপ হলাে এই ভেবে যে তার সঙ্গে কেউ নেইকেউ থাকলে কিশােরীদের মতাে চেঁচিয়ে বলতে পারতদেখ দেখ কী সুন্দরসুন্দর কিছু দেখলেই অন্যকে দেখাতে ইচ্ছা করে। 

আরে আরে আফা না

নবনী তাকালপ্লটফরম থেকে দৌড়ে তার দিকে কে যেন আসছেগােলগাল মুখ, মাথা পরিষ্কার করে কামানাে। মনে হচ্ছে আজই কামিয়েছেচকচক করছেপরনে লুঙ্গি, পায়ে রবারের জুতাগায়ে ইস্ত্রি করা টিশার্টে লেখা University of California লােকটি দাঁত বের করে এমনভাবে হাসছে যেন নবনী তার দীর্ঘদিনের পরিচিত, অথচ নবনী আজই মানুষটাকে প্রথম দেখছে। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(২০) হুমায়ূন আহমেদ

আফা আমারে চিনেছেন ? আমি মতিআপনি যান কই ? এখানেই নামব। 

নামলে নামেনজানালা দিয়া বেদিশার মতো চাইয়া আছেনআমি ভাবি ঘটনা কী? আমরার আফা যায় কই ? ট্রেন ছাইড়া দিব আফা। 

আমি কিন্তু তােমাকে চিনতে পারছি না। 

মতি আনন্দিত গলায় বলল, মাথা কামাইছি বইল্যা চিনতে পারতেছেন নামাথায় উকুন হইছিলমাথা কামাইয়া সােভার পানি দিয়া ধুইয়া উকুনের বংশ শেষ করছিআফনে মনে হয় এখনাে চিনেন নাইইয়াদ কইরা দেখেন প্রথমবার যখন আসছেন ডাক্তার সাবের কাছে আপনেরে কে নিয়া গেছিল 

আচ্ছামনে পড়েছেতখন তােমার গাল ভর্তি দাড়ি ছিল। 

এই তাে চিনেছেনদাড়িতেও উকুন হয়েছিল উকুন আমারে ভালাে পায়নামেন আফা, নামেনজিনিসপত্র কী আছে দেখায়ে দেন। 

মতি লাফ দিয়ে ট্রেনে উঠে পড়লতাড়াহুড়া করার প্রয়ােজন নেইআজ ট্রেন ফাঁকামতি তার অভিজ্ঞতায় দেখেছে ট্রেন যখন ফাকা থাকে যাত্রীরা ধীরে সুস্থে নামে তখনই জিনিসপত্র ফেলে যায়প্রচণ্ড ভিড়ে ধরনের ঘটনা ঘটে 

আফা আপনে যে আসবেন ডাক্তার সাব জানে ? আসব যে জানেকবে আসব জানে না। 

মতি চিন্তিত মুখে বলল, ঘরে বাজার আছে কিনা কে জানে! গিয়া হয়তাে দেখবেন দুইটা আলু একটা পিয়াজ ছাড়া কিছু নাইমহা চিন্তার বিষয় হইল। 

নবনী বলল, মতি তােমাকে চিন্তা করতে হবে নাতুমি দেখে শুনে মালগুলাে নামাওপ্যাকেটে বই আছে

Leave a comment

Your email address will not be published.