তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(৬) হুমায়ূন আহমেদ

কাজেই আল্লাপাক একটা ঝড়ের ব্যবস্থা করলবাড়ি ঘর উল্টাইল, মানুষের বিরাট ক্ষতি হইল, পশু পাখি মরলডাহুক পাখি মরল বইল্যা তুমি ডাহুক পাখির সালুন পাইলা। এখন ঘটনা চিন্তা কর তােমারে খাওয়ানির জন্যে আল্লাপাকরে কী যন্ত্রণা করন লাগলযা বললাম এর মধ্যে জটিল চিন্তার বিষয় আছেমাথা ঠাণ্ডা কইরা চিন্তা কর। 

তেঁতুল বনে জোছনা

নিজের যুক্তিতে মতি নিজেই মুগ্ধতার চোখ চকচক করছেনিজেকে খুবই জ্ঞানী মনে হচ্ছেমর্জিনা খাওয়া বন্ধ করে এক দৃষ্টিতে মতির দিকে তাকিয়ে আছেমনে হচ্ছে যুক্তির এই দিকটা তাকেও স্পর্শ করেছে। 

মতি বলল, কী চিন্তা করতেছ

মর্জিনা থমথমে গলায় বলল, আপনে আমারে মরা পাখির গােশত খাওয়াইছেন ? ঝড়ে পাখি মরছে, হেই পাখি রাইন্ধা নিয়া আসছেন

রাগে মর্জিনার রীর কাঁপছেব্যাপারটা যে উল্টো দিকে যেতে পারে এটাতির কল্পনাতেও আসে নি। সে হড়বড় করে বলল, আরে কী কও তুমি! জুম্মা ঘরের মওলানা সাবরে জিজ্ঞাস কইরা আসছিঝড় তুফানে মরা পাখির মাংস পাওয়া জায়েজ আছেহাদিসের বইয়ে পরিষ্কার লেখাতুমিতাে লেখা পড়া জান নালেখা পড়া জানলে তােমারে বই আইন্যা দেখাইতামতবে বজ্রপাতে মরা পশুপাখির মাংস খাওয়া সম্পূর্ণ নিষেধ। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(৬) হুমায়ূন আহমেদ

মর্জিনা ঘর থেকে বের হয়ে বারান্দায় চলে গেছেসে গলায় আঙুল দিয়ে বমি করার চেষ্টা করছেলক্ষণ মােটেই ভালাে নামতিকে দ্রুত সরে পড়া পকার। 

আজ রাতটা এখানে থাকতে পারলে ভালাে হতােডাক্তার সাহেবের সাইকেল সে চুরি করে নিয়ে এসেছেভােরবেলা সাইকেলের একটা গতি করা যেতচুরি করে আনা গরু সামলানাে যেমন মুশকিল, সাইকেল সামলানাে ঠিক সে রকমই মুশকিলএকবার গরু চুরি করে সে এমন বিপদে পড়েছিলরাখার জায়গা নাইশেষে খােয়াড়ে জমা দিয়ে কুড়ি টাকা পেয়েছেলাভের মধ্যে লাভ কুড়ি টাকাতার দিনটা ভালােমতাে যাচ্ছিল শেষের দিকে এসে সব কেমন এলােমেলাে হয়ে গেল। 

মর্জিনা বারান্দা থেকে গজগজ করছেতুই আমারে মরা পাখির গােশত খাওয়াইছস, তােরে আমি যদি গু না খাওয়াই তাইলে আমি সতী মায়ের কন্যা

আমি বেজন্মাতরকারির চামুচ দিয়া তরে আমি এক চামুচ কাচা খাওয়ামুতুই আমারে অখনাে চিনস নাই। 

মতি ঘর থেকে বের হয়ে পড়লআর থাকা ঠিক নাতার মনটা খুবই থাপ হয়েছেমর্জিনা তুই তােকারি করছেভালােবাসার মানুষকে আদর করে তুই তােকারি করা যায় তাতে দোষ হয় না, কিন্তু গালাগালি করে তুই 

তােকারি করা যায় নামরা পাখির গােশত খেয়েছে তাে কী হয়েছেজ্যান্তপাখির গােশত কেউ কোনাে দিন খেয়েছে ? হারামজাদি মরা পাখি শুধু দেখলমরা পাখির পিছনের ভালােবাসাটা দেখল না ? 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(৬) হুমায়ূন আহমেদ

নবনীর ঘুম ভাঙ্গে সকাল দশটায়। 

সপ্তাহে দুদিন, মঙ্গলবার এবং বৃহস্পতিবারে তার ক্লাস থাকে টায়এই দুদিন ঘড়িতে এলার্ম দেয়া থাকেযথাসময়ে এ্যালার্ম বাজেঘুমের ঘােরে নবনী হাত বাড়িয়ে ঘড়ি হাতে নেয়এ্যালার্ম বন্ধ করে পাশ ফিরে শুয়ে পড়েঅ্যালার্মের পর তার ঘুম গাঢ় হয়খুব শান্তি শান্তি লাগেতার ঘুম ভাঙ্গে যথারীতি সকাল দশটায়ক্লাস করা হয় নি নিয়ে তাকে মােটেও চিন্তিত মনে হয় নাদরজা খুলে সে বের হয়ে তীক্ষ্ণ গলায় বলে, আমার চা কোথায় ? বলেই সে আবার নিজের ঘরে ঢুকে বিছানায় এলিয়ে পড়েবড় কাপ ভর্তি চা আসবেচায়ে চুমুক দিতে দিতে আস্তে আস্তে ঘুম কাটাবেতারপর আসবে দাঁত ব্রাস করার প্রশ্নহাত মুখ ধােয়ার প্রশ্ন। 

আজ বৃহস্পতিবার সকালের ক্লাস মিস হয়েছেএকটা টিউটোরিয়েল ক্লাস আছে দুপুর দুটায় এডগার এলেন পেপার কবিতা নিয়ে আলােচনা। 

It was many and many a years ago In a Kingdom by the sea, That a maiden there lived whom you may know By the name of Annabel Lee; And this maiden she lived with no other thought 

Than to love and be loved by me. আচ্ছা এই কবিতাটার সঙ্গে রবীন্দ্রনাথের বিখ্যাত কবিতা একই গাঁয়ের খুব মিল আছে না

আমার নাম তাে জানে গাঁয়ের পাঁচজনে 

আমাদের সেই তাহার নামটি রঞ্জনা এডগার এলান পাের এনাবেল লীই কি রবীন্দ্রনাথের রঞ্জনা ? স্যারকে এই প্রশ্ন করলে কেমন হয় ? স্যার কি খুব রেগে যাবেন ? স্যার 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(৬) হুমায়ূন আহমেদ

আবার অস্বাভাবিক রবীন্দ্রভক্তইংরেজির অধ্যাপকরা রবীন্দ্রভক্ত হন নাশহীদ স্যার রবীন্দ্রভক্তশহীদ স্যারের ক্লাসটা না করলে আজ ছুটিশুক্র শনি এম্নিতেই ছুটিতিনদিনের ছুটিনবনী চায়ের কাপে চুমুক দিচ্ছে, দ্রুত চিন্তা করছে দুপুরের ক্লাসটা করবে কী করবে নামন স্থির করতে পারছে নাক্লাস করাটা জরুরি আবার পরপর তিনদিনের ছুটিটাও জরুরিকোন জরুরিটা বেশি জরুরি

নবনীর শীত লাগছে সারারাত এসি চলেছেঘর এখন ডীপ ফ্রীজের মতাে ঠাণ্ড। ভােররাতে শীতে কাঁপতে কাঁপতে একবার ঘুম ভেঙ্গেছে। সে হাত বাড়িয়ে এসি বন্ধ করার রিমােট কনট্রোল খুঁজেছে। পাওয়া যায় নি। বিছানা থেকে নেমে এসির রিমােট কনট্রোল খোজার কোনাে মানে হয় নাসে কুঁকড়ি মুকড়ি দিয়ে আবার ঘুমিয়ে পড়েছেকাল শেষ রাতে নবনীর মনে হয়েছে সে এই পৃথিবীতে আগে আগে এসে পড়েছে। আরাে বিশ পঁচিশ বছর পর তার জন্ম হলে যন্ত্রণা কম হতাে। তখন বিজ্ঞান আরাে অনেকদূর এগিয়ে যেতঘর বেশি ঠাণ্ডা হয়ে গেলে হাত বাড়িয়ে রিমােট কনট্রোল খুঁজতে হত নাসে মুখে বলবেএসি বন্ধ। 

ওমি এসি বন্ধ। 

টিভির চ্যানেল বদলাবার জন্যে বােতাম টিপাটিপি করতে হবে না। মুখে বললেই হবেচ্যানেল নাম্বার সেভেন, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিগুন্নি চ্যানেল বদলে যাবে। শুরু হয়ে যাবে ন্যাশনাল জিওগ্রাফির চ্যানেল। 

তেঁতুল বনে জোছনা-পর্ব-(৬) হুমায়ূন আহমেদ

রাতে শােবার সময় নবনী সবকিছু হাতের কাছে নিয়ে ঘুমায়এক বােতল পানি, এসির রিমােট কনট্রোল, টিভির রিমােট কনট্রোল, পছন্দের একটা গল্পের বই এবং একটা খাতাকলমবিশেষ ধরনের কলম, লেখার সময় কলম থেকেআলাে বের হয়সেই আলােয় রাতেও লেখা যায়। খাতাটা সে রেখেছে স্বপ্ন দেখে ঘুম ভাঙ্গলে স্বপ্নটা সঙ্গে সঙ্গে লিখে ফেলার জন্য। কারণ দিনের বেলায় রাতের কোনাে স্বপ্নই তার মনে থাকে নাইদানীং প্রতি রাতেই নবনী ভয়ঙ্কর সব স্বপ্ন দেখছেনবনীর দূরসম্পর্কের এক চাচা ঢাকা মেডিকেল কলেজের সাইকিয়াট্রির প্রফেসর তিনি তাকে শােবার সময় খাতাকলম নিয়ে শুতে বলেছেননবনীর চিকিৎসা করার সময় তার স্বপ্নগুলাে জানা নাকি বিশেষ প্রয়ােজন। 

গত রাতে কোনাে স্বপ্ন দেখেছে কি-না নবনী মনে করতে পারল নাশেষ রাতে একবার যখন ঘুম ভেঙ্গেছে তাহলে ধরে নেয়া যায় স্বপ্ন দেখেই ঘুম 

ভঙ্গেছে। নবনী হাত বাড়িয়ে খাতাটা নিলপাতা উল্টালহ্যা, স্বপ্ন দেখেছেসেটা গােটা করে স্বপ্ন লেখা আছে

Leave a comment

Your email address will not be published.