নেইমার-এমবাপ্পের পাশে কোচ, সভাপতি । 

জামার্ন জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখের গোলরক্ষক ম্যাণুয়েল নয়্যার একাই হারিয়ে ‍দিলেন পিএসজিকে । ক্লাব ইতিহাসে এটাই ছিল পিএসজির চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম ফাইনাল । Nymarপ্রথমবার চ্যাম্পিয়নস লিগের ট্রফির খুব কাছাকাছিে এসেও ট্রফিটা ঘরে তোলা হলো না নেইমার এমবাপেদের । 

ফাইনালে নেইমার এমবাপে গোল করার বেশ কয়েকটি সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু নয়্যারকে পরাস্ত করতে না পারায় পিএসজিকে ০-১ ব্যবধানে নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় । আর তাই ইতিহাসে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে ওঠেও  ইতিহাসেটাকে রঙ্গীন করা হলো না নেইমারদের । 

পিএসজির কোচ থমাস টাচেল বলেছেন, আমরা নেইমার ও এমবাপ্পের কাছ থেকে গোল চাই । কিন্তুু  সব সময়ই সেটা সম্ভব হবে এমন আশা করাও ঠিক নয় । কারণ নেইমার তার মানসিকতার প্রমাণ দিয়েছে । পুুরো ম্যাচেই সে সমানতালে খেলেছে । 

চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জয়ের লক্ষে ২০১৭ সালে পিএসজির মালিক নেইমার ও এমবাপ্পের জন্য ৪০২ মিলিয়ন ইউরো ব্যয় করেছিলেন । ২০২০ সালে তাদের লক্ষের প্রায় কাছে এসে ব্যর্থ হয়ে ফিরতে হলো । ফাইনালে এই দামি দুই খেলোয়াড় মিলে শট নিয়েছেন ২৩ টি । কিন্তুু কোনো গোলের দেখা পান নি । এমবাপ্পের গোল মিসের মহড়া ছিল খুবই দৃষ্টিকটু । তবু তাদের দোষারোপ করতে রাজি নন পিএসজি কোচ । 

পিএসজির কোচ বলেন, কিলিয়ানের জন্য ম্যাচটা খুবই কঠিন ছিল । জুলাইয়ে গুরুতর ইনজুরির পরেও এমবাপ্পে পুরো ম্যাচ যে সে আমাদের সঙ্গে ছিল এটাই বড় বিষ্ময় । 

দলের পরাজয়ে হতাশ নন পিএসজির কাতারি সভাপতি নাসির আল-খেলাইফি ।খেলা শেষে তিনি বলেছেন , নেইমার – এমবাপ্পেদের নিয়ে আমি দারুণ গর্বিত পুরো মৌসুমে তারা দারুণ খেলেছে । এ টুর্ণামেন্টেও আমরা অসাধারণ খেলেছি । কেউ চিন্তাই করেনি আমরা ফাইনালে খেলব । আমরা জয়ের খুব কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলাম । খেলায় জয়-পরাজয় থাকবে এটাই ফুটবল । আগামী মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের জয়ের জন্য আমরা কাজ করব । এটাই আমাদের মূল লক্ষ্য ।

Leave a comment

Your email address will not be published.