পাকিস্তানের হয়ে খেলতে না পারার কষ্ট তাড়া করে ইমরান তাহির কে 

পাকিস্তানের পাঞ্জাবের লাহরের একটি সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন বর্তমান দক্ষিণ আফ্রিকার তারকা ক্রিকেটার ইমরান তাহির। জন্ম- বেড়ে ওঠা যে দেশে সৌভাগ্য হয়নি সেই দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার! নিজ দেশের হয়ে খেলতে না পারায় তিনি খুব কষ্টই পেয়েছেন । এই দুর্ভাগ্যর কারনে তার রয়েছে প্রচুর আক্ষেপ, রয়েছে হতাশা । কিন্তু এমন হতাশার মাঝে তিনি ছড়িয়েছেন আলো । ২০০৫ সাল পর্যন্ত ইমরান তাহির পাকিস্তানেই ছিলেন । দেশের অনুর্ধ্ব -১৯ আর ‘এ’ দলে খেলেছেন । তবে সুযোগ হয়নি পাকিস্তান জাতীয় দলের হয়ে খেলার ।Imran

অনেকটা অভিমানের পাহাড় নিয়ে দেশ ছেড়ে পাড়ি জমান দক্ষিন আফ্রিকায় । সেখানে চার-বছর থাকার পর অভিবাসন আইনে প্রোটিয়া জাতীয় দলের হয়ে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেন বিশ্বসেরা লেগস্পিনার ইমরান তাহির । ২০১১ সালে অভিষেক হয় তাঁর । 

প্রোটিয়াদের স্পিন আক্রমনের অন্যতম সেরা অস্ত্র ছিলেন তাহির । দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে প্রোটিয়া এ তারকা খেলেছেন ১০৭ ওয়ানডে, ৩৮ টি টুয়েন্টি এবং ২০ টি টেস্ট ৫৭ টি উইকেট । 

৪১ বছর বয়সী ইমরান তাহির ২০১৯ সালের বিশ্বকাপের পর ওয়ানডেকে বিদায় জানান । তবে ফ্র্যাঞ্জাইজি লিগগুলোতে এই স্পিনারের চাহিদা আছে আগের মতোই । 

অনেক কিছু প্রাপ্তির পরও একটা কষ্ট তাকে এখনও তাড়া করে বেড়ায় । গণমাধ্যমের এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘‘আমি একসময় লাহোরে ক্রিকেট খেলতাম । বলতে গেলে জীবনের বেশিরভাগই খেলেছি পাকিস্তানে। কিন্তু জাতীয় দলের খেলার সুযোগ পাইনি কখনো । এটা আমার জন্য ভীষণ হতাশার ।’’

তিনি আরো বলেন, পাকিস্তান ছেড়ে আসা আমার জন্য খুব কঠিন ছিল । তবে আল্লাহ সহায় ছিলেন । দক্ষিন আফ্রিকায় খেলার পিছনে বড় কৃতীত্ব আমার স্ত্রীর ।’’

উল্লেখ্য যে ২০০৫ সালে স্ত্রী সুমাইয়া দিলদারের কথাতেই দেশ ত্যাগ করার কঠিন সিদ্ধান্ত নেন বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় লেগ স্পিনার ইমরান তাহির

Leave a comment

Your email address will not be published.