ভালো খেলাটাই মূল লক্ষ্য ছিল

mash

ক্যারিয়ারের প্রায় শেষ বেলায় দাঁড়িয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজা। সবাই যখন মাশরাফি’র মুখে ‘শেষ’ শব্দটা শোনার অপেক্ষায়, ঠিক তখনই যেন আগ্নেয়গিরির মতো মাশরাফি জ্বলে উঠছেন বারবার। মাশরাফির আসলে শেষ কোথায়? এই প্রশ্নটার উত্তরে মাশরাফির সোজা উত্তর, শেষ বলতে কিছু নেই। যেদিন মনে হবে আমি আর পারছি না সেদিনই শেষ বলে দিব।হচ্ছেও তাই। মাশরাফির দম পুরোয়নি এখনও। বয়স ৩৫ পেরিয়ে ৩৬ বছরে পা দিয়েছেন। ক্যারিয়ারের শেষ বেলায় এসে ক্রিকেট ছাড়ার আগেই অংশ নিয়েছেন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। এখানেও পেয়েছেন সাফল্য।গত মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলে নির্বাচনের জন্য গিয়েছিলেন নিজের শহর নড়াইল-২ আসনে। দীর্ঘ ১১ দিন ধরে ছিল না কোনও প্রস্তুতি।

সেখান থেকে এসে নতুন রুটিন গণভবন আর মিরপুরের একাডেমী মাঠ। এ যেন দুই নৌকায় পা দেয়ার মতো অবস্থা।দুই নৌকায় পা দিয়ে মাশরাফি অবশ্য ডুবে যাননি বরং নতুন কিছু শিখেছেন।‘সাম্প্রতিক সময়ে আমি একটা জিনিস ভালো শিখেছি যে, বর্তমান সময়ে স্ট্রং থাকার ব্যাপারটা। কদিন আগে নির্বাচন শেষ করে ঢাকায় ফেরা এরপর অল্প সময় পেয়েছি মাঠে আসার। তবে সবকিছুর পরও ফোকাস রেখেছিলাম, বিপিএলের প্রথম ম্যাচ থেকে খেলার। মানসিকভাবে তৈরি ছিলাম বলেই খেলতে পারছি।’প্র্যাকটিস করার সুযোগ আর কতটুকই বা পাওয়া হলো! খানিকক্ষণ জিম সেশন, এরপর দুই, তিন ওভার বোলিং। তাতেই সারা হয়েছে বিপিএলের প্রস্তুতি। অথচ সবশেষ টি-টোয়েন্টি খেলেছিলেন ২০১৭ সালে বিপিএলে।

ভালো খেলাটাই মূল লক্ষ্য ছিল

এরপর আবার টি-টোয়েন্টি খেলতে নেমেছেন দীর্ঘ ১৩ মাস পর।  রংপুর রাইডার্সের হয়ে এবারের আসরে প্রথম দুই ম্যাচে ৫৯ রান দিয়ে নিয়েছিলেন ৩ উইকেট।আজ বুধবার নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে রংপুর মুখোমুখি হয়েছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের। দু’দলই এবারের আসরে ফেভারিট নাম। দু’দলের সমর্থকদের অপেক্ষা ছিল হাড্ডাহাড্ডি একটা লড়াই দেখার।সন্ধ্যায় টস জিতে ভিক্টোরিয়ানস অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ সিদ্ধান্ত নেন আগে ব্যাট করার। ব্যাটিংয়ে নেমে রংপুর অধিনায়কের ৪ ওভারেই ভেঙে যায় কুমিল্লার টপ-অর্ডার।একের পর এক উইকেট নিয়ে ফেভারিট কুমিল্লাকে চেপে ধরেন মাশরাফি নিজেই। প্রথমে তামিম, এরপর ইমরুল কায়েস, এভিন লুইস আর স্টিভ স্মিথ।

এই চার উইকেটের মধ্যে সবকটাই গুরুত্বপূর্ণ ছিল তবে মাশরাফির কাছে তামিমের উইকেটটাই বেশি গুরুত্বের।‘তামিম অনেকদিন ধরেই আমার বল ভালো খেলছে। টি-টোয়েন্টি ওয়ানডে কিংবা চারদিনের ম্যাচ, সব ফরম্যাটেই ও আমার বল ভালো খেলে। আমার বিপক্ষে ওর স্ট্রাইক রেটও অনেক ভালো। আজ ওর উইকেট নেয়াটা আমার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ছিল।মাশরাফি বলছেন, প্রথম বলটা করার পর আমার কাছে মনে হচ্ছিল যে উইকেটে মনে হয় ডাবল পেস হবার সুযোগ আছে। তখনই ভাবছিলাম যে, একটু চেষ্টা করলে বোধহয় ভালো কিছু পাওয়া যেতে পারে এই উইকেট থেকে।

আমাদের সৌভাগ্য যে দ্রুত উইকেট নিতে পেরেছি।  কিন্তু আমার কাছে মনে হয়, উইকেট নেয়ার চাইতেই সঠিক জায়গায় বল করতে পারাটা।প্রথম দুই ম্যাচে ৩ উইকেট পাওয়ার পর আজ কুমিল্লার বিপক্ষে ১১ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মিলে যা কি না মাশরাফির টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ক্যারিয়ার সেরা বোলিং।এ নিয়ে মাশরাফির উচ্ছ্বাস নেই বরং বললেন, আমি আসলে আন্তর্জাতিক ম্যাচ কাউন্ট করি। আন্তর্জাতিক ম্যাচের গুরুত্বটাই আমার কাছে বেশি। তবে যখন যেটা খেলছি তখন সর্বোচ্চ চেষ্টা করি যেন ভালো খেলতে পারি।

 

 

 

source-rtv

Leave a comment

Your email address will not be published.