ভয় (পর্ব-১১)-হুমায়ূন আহমেদ

কেন সে এই রকম করে? কেন বার বার আমার ঘরে আসে? লােকের চোখে পড়লে নানান কথা রটবেমেয়ে যতাে সুন্দর তারে নিয়া রটনাও ততাে বেশি

ভয় লতিফা আমার বিছানায় বসতে বসতে বললাে, কই বলেন এটার উত্তর কি

পাকলে খেতে চায় না, কাঁচা খেতে চায় 

কেমন ফল বলতাে আমায়? বলতে পারলেন না এটা হলাে শশাপাকা শশা কেউ খায় নাসবাই কাঁচা শশা চায়আচ্ছা আপনার বুদ্ধি এতাে কম কেন? একটাও পারেন নাআপনি একটা ধাধা ধরেন আমি সংগে সংগে বলে দেবাে। 

আমি ধাধা জানি না লতিফাআপনি কি জানেন? শুধু আল্লাহ আল্লাহ করতে জানেন আর কিছু জানেন

লতিফা তুমি এখন ঘরে যাও | ঘরেই তাে আছিএইটা ঘর না? এইটা কি বাহির ?” যখন তখন তুমি আমার ঘরে আসাে এটা ঠিক না। 

ঠিক না কেন? আপনি কি বাঘ না ভালুক

আমি চুপ করে রইলামআধাপাগল এই মেয়েকে আমি কি বলবাে? এই মেয়ে একদিন নিজে বিপদে পড়বেআমাকেও বিপদে ফেলবেলতিফা বললাে, আমি যে মাঝেমধ্যে আপনার এখানে আসিসেইটা আপনার ভালাে লাগে না ঠিক না

ঠিকভালাে লাগে না কেন?নানান জনে নানান কথা বলতে পারেকি কথা বলতে পারে? আপনার সংগে আমার ভালােবাসা হয়ে গেছে? চুপ করে আছেন কেন বলেন। 

তুমি এখন যাও লতিফা। 

আচ্ছা যাইকিন্তু আমি আবার আসবােরাত দুপুরে আসবােতখন দেখবেন কি বিপদ” 

কেন এই রকম করতেছাে লতিফা?| লতিফা উঠে দাঁড়াতে দাঁড়াতে বললাে, যে ভয় পায় তাকে ভয় দেখাতে আমার ভালাে লাগেএইজন্যে এরকম করিআচ্ছা মৌলানা সাহের যাইআসসালামু আলায়কুম ওয়া রহমাতুল্লাহে ওয়া বরকাতুহু হি হি হি. ভাই, আপনার কাছে সত্য কথা গােপন করবাে না

সত্য গােপন করা বিরাট অন্যায়আল্লাহ পাক সত্য গােপনকারীকে পছন্দ করেন নাচাকরি পাওয়ার পরেও আমি মােক্তার সাহেবের বাড়িতে থেকে গেলাম শুধু লতিফার জন্যতারে দেখার জন্য মনটা ছটফট করতােমনে মনে অপেক্ষা করতাম কোন সময় তারে এক নজর হলেও দেখবতার পায়ের শব্দ শুনলেও বুক ধড়ফড় করতােরাত্রে ভাল ঘুম হত 

শুধু লতিফার কথা ভাবতামবলতে খুব শরম লাগছে ভাই সাব তবু বলি লতিফার চুলের একটা কাঁটা আমি সব সময় আমার সঙ্গে রাখতামআমার কাছে মনে হত এইটা চুলের কাটা নাসাতরাজার ধনআমি আল্লাহপাকের দরবারেকান্নাকাটি করতামবলতাম হে পরােয়ারদিগার, হে গাফুরুর রহিম, তুমি আমাকে একি বিপদে ফেললাতুমি আমারে উদ্ধার করাে। 

আল্লাহপাক আমাকে উদ্ধার করলেনলতিফার বিবাহের প্রস্তাব আসলােছেলে এমবিবিএস ডাক্তারবাড়ি গৌরিপুরভালাে বংশখান্দানি পরিবারছেলে নিজে এসে মেয়ে দেখে গেলােমেয়ে তার খুব পছন্দ হলােপছন্দ না হওয়ার কোনাে কারণ নাইলতিফার মতাে রূপবতী মেয়ে সচরাচর দেখা যায় নাছেলেও দেখতে শুনতে ভালােশুধু গায়ের রঙটা একটু ময়লাকথায় বার্তায়ও ছেলে অতি ভদ্র। 

ভয় (পর্ব-১১)-হুমায়ূন আহমেদ

বিয়ে ঠিকঠাক হয়ে গেলােবারােই শ্রাবণশুক্রবার দিবাগত রাত্রে বিবাহ পড়ান হবে। 

আমার মনটা বড়ই খারাপ হয়ে গেলােআমি জানি এই মেয়ের সংগে আমার বিবাহের কোনাে প্রশ্নই ওঠে নাকোথায় সে আর কোথায় আমিচাকরশ্রেণীর আশ্রিত একজন মানুষ। জমিজমা নাই, আত্মীয়স্বজন নাই, সহায় সম্বল নাইতারজন্য আমি কোনােদিন আফসােস করি নাইআল্লাহপাক যাকে যা দেন তাই নিয়াই সন্তুষ্ট থাকতে হয়আমিও ছিলামকিন্তু যেদিন লতিফার বিয়ের কথা পাকাপাকি হয়ে গেলাে সেদিন কি যে কষ্ট লাগলাে বলে আপনাকে বুঝাতে পারবাে নাসারারাত শহরের পথে পথে ঘুরলাম

জীবনে কোনােদিন নামাজ কাজা করি নাই এই প্রথম এশার নামাজ কাজা করলামফজরের নামাজ কাজা করলামএতােদিন পরে বলতে লজ্জা লাগছে আমার প্রায় মাথা খারাপের মতাে হয়ে গিয়েছিলােভােরবেলা মােক্তার সাহেবের বাসায় গেলামসবার কাছ থেকে বিদায় নিলামএইখানে আর থাকবাে নাবাজারে চালের আড়তে থাকবাে

মােক্তার সাহেবের স্ত্রী বললেন, এখন যাবে কেন বাবা? মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়ে গেছেকতাে কাজকর্মকাজকর্ম শেষ করে তারপর যাও আমি মিথ্যা কথা বলি নাপ্রথম মিথ্যা বললামআমি বললাম, মা ছিদ্দিকুর রহমান সাহেব আমাকে আজই দোকানে গিয়ে উঠতে বলেছেন উনি আমার মনিবঅন্নদাতাউনার কথা না রাখলে অন্যায় হবেবিয়ের সময় আমি চলে আসবেকাজকর্মের কোনাে অসুবিধা হবে না মা। 

সবার কাছ থেকেই বিদায় নিলামলতিফার কাছ থেকে বিদায় নিতে পারলাম সে যখন সামনে এসে দাড়ালাে তখন চোখ তুলে তার দিকে তাকাতে পর্যন্ত পারলাম না। 

লতিফা বললাে, চলে যাচ্ছেন? আমি বললাম হ্যাকেন, আমরা কি কোনাে দোষ করেছি? ছিঃ ছিঃ দোষ করবে কেন? আচ্ছা যাওয়ার আগে এই ধাধাটা ভাঙায়ে দিয়ে যান বলেন দেখি – 

ছাই ছাড়া শােয় না; | ‘লাথি ছাড়া উঠে নাএই জিনিশ কি?জানি না লতিফাএতাে সহজ জিনিশ পারলেন নাএটা হলাে কুকুরআচ্ছা যানদোষ ঘাট হলে ক্ষমা করে দিয়েন। 

আমি আড়তে চলে আসলামরাত আটটার দিকে মােক্তার সাহেব লােক পাঠিয়ে আমাকে ডাকিয়ে নিয়ে গেলেনতিনি শােবার ঘরে চেয়ারে বসেছিলেনআমাকে সেইখানে নিয়ে যাওয়া হলােআমি খুবই অবাক হলামএকটু ভয় ভয়ও করতে লাগলােতাকিয়ে দেখি মােক্তার সাহেবের স্ত্রী খাটে বসে আছেননিঃশব্দে কঁদছেনআমি কিছুই বুঝলাম নাবুক ধড়ফড় করতে লাগলােনা জানি কি হয়েছে। 

মােক্তার সাহেব বললেন, তােমাকে আমি পুত্রের মতাে স্নেহ করেছিতার বদলে তুমি এই করলে? দুধ দিয়ে কাল সাপ পােষার কথা শুধু শুনেছিআজ নিজের চোখে দেখলাম। 

আমি মােক্তার সাহেবের স্ত্রীর দিকে তাকিয়ে বললাম, মা আমি কিছুই বুঝতেছি 

মােক্তার সাহেব চাপা স্বরে বললেন, বােকা সাজার দরকার নাইবােকা সাজবা তুমি যা করেছে তা তুমি ভালােই জানােতুমি পথের কুকুরেরও অধম। 

আমি বললাম, আমার কি অপরাধ দয়া করে বলেনমােক্তার সাহেব রাগে কাঁপতে কাঁপতে বললেন, মেথরপট্টিতে যে শুওর থাকে তুই তারচেয়েও অধম তুই নর্দমার ময়লাবলতে বলতে তিনিও কেঁদে ফেললেন। 

মােক্তার সাহেবের স্ত্রী বললেন লতিফা সবই আমাদের বলেছে কিছুই লুকায় নাইএখন এই অপমান এই লজ্জার হাত থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় লতিফার সংগে তােমার বিবাহ দেয়াতুমি তাতে রাজি আছাে? না মেয়ের সর্বনাশ করে পালানােই তােমার ইচ্ছে। 

আমি বললাম, মা আপনি কি বলছেন, আমি কিছুই বুঝতে পারতেছি নালতিফা কি বলেছে আমি জানি নাতবে আপনারা যা বলবেন আমি তাই করবােআল্লাহপাক উপরে আছেনতিনি সব জানেন, আমি কোনাে অন্যায় করি নাই মা

মােক্তার সাহেব চিৎকার করে বললেন, চুপ থাক শুওরের বাচ্চাচুপ থাক। 

সেই রাতেই কাজী ডাকিয়ে বিয়ে পড়ানাে হলােবাসররাতে লতিফা বললাে, আমি একটা অন্যায় করেছি আপনার সাথে যেন বিবাহ হয় এই জন্যে বাবামাকে মিথ্যা করে বলেছি আমার পেটে সন্তান আছেবিরাট অপরাধ করেছি, আপনার কাছে ক্ষমা চাই। 

আমি বললাম, লতিফা আমি তােমার অপরাধ ক্ষমা করলামতুমি আল্লাহপাকের কাছে ক্ষমা চাও| আপনি ক্ষমা করলেই আল্লাহ ক্ষমা করবেনতাছাড়া আমি তেমন বড় অপরাধ তাে করি নাইসামান্য মিথ্যা বলেছিআপনাকে বিবাহ করার জন্য অনেক বড় অপরাধ করার জন্যেও আমি তৈরি ছিলাম

(চলবে)

ভয় (পর্ব-১০)-হুমায়ূন আহমেদ

Leave a comment

Your email address will not be published.