মোতাহের হোসেন চৌধুরী এর জীবনী ও সাহিত্যকর্ম

মোতাহের হোসেন চৌধুরী একজন প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ ও লেখক ছিলেন । তিনি পরিশীলিত গদ্যের রচয়িতা হিসেবে বাংলা সাহিত্যে পরিচিত । তাঁর লেখনীতে মুক্তবুদ্ধি, মননশীলতা, মানবতার ছাপ পাওয়া যায় ।মোতাহের হোসেন চৌধুরী

তিনি মননশীল প্রবন্ধ রচনা করে বিশেষ খ্যাতি লাভ করেন ।  তিনি কিশোর বয়স থেকেই আগ্রহী হয়ে উঠেন । তিনি প্রথমদিকে কবিতা বেশি লিখতেন । বাঙালী মুসলমান সমাজের অগ্রগতির আন্দোলন হিসেবে পরিচিত ‘বুদ্ধির মুক্তি আন্দোলনের’ সাথে যুক্ত ছিলেন । তিনি এই আন্দোলনে কাজী আবদুল ওদুদ, আবুল হুসেন, কাজী মোতাহার হোসেন, আবুল ফজল, আবদুল কাদির প্রমুখের সহযোগী ছিলেন ।

তিনি ঢাকার মুসলিম সাহিত্য সমাজের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ছিলেন । তাঁর লেখায় প্রমথ চৌধুরী, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-এর প্রভাব লক্ষ্য করা যায়া । তাঁর রচনায় সমাজ-সংস্কৃতি, ধর্ম-বর্ণ, মানবতাবোধ ইত্যাদি বিষয়াবলী বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করা হয়েছে, সুন্দর, মহৎ ও ভালোভাবে জীবনযাপনের উপায় সন্ধান করা হয়েছে ।

  • প্রখ্যাত এই শিক্ষাবিদের জন্ম – ১৯০৩ সালে ।
  • বিশিষ্ট এই লেখকের পৈত্রিক নিবাস – তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির অন্তর্গত (বর্তমানে বাংলাদেশ) নোয়াখালী জেলার কাঞ্চনপুর গ্রামে ।
  • বিশিষ্ট এই লেখকের পিতার নাম – সৈয়দ আবদুল মজিদ ও মাতার নাম ফাতেমা খাতুন । মাতামদ কুমিল্লার বিখ্যাত দারোগা বাড়ির মৌলভি আশরাফ উদ্দীন ।
  • অন্যতম এই লেখকের শিক্ষাজীবন – তিনি কুমিল্লা ইউসুফ হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন (বর্তমানে এস.এস.সি) পাশ করেন । আইএ ও বিএ তিনি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে পাশ করেন এবং ১৯৪৩ সালে প্রাইভেটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এমএ পাশ কারেন ।

মোতাহের হোসেন চৌধুরী এর জীবনী

  • বিশিষ্ট এই লেখকের কর্মজীবন – কর্মজীবনের শুরুতে কুমিল্লা ইউসুফ হাইস্কুলে একজন সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন । ১৯৪৬ সালে তিনি কলকাতার ইসলামিয়া কলেজে লেকচারার পদে যোগদান করেন । ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর চট্টগ্রাম কলেজে যোগদান করের এবং ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত অধ্যাপনা করেন । সেসময় তিনি চট্রগ্রাম কলেজে সাহিত্যিক আবুল ফজলের সহাচর্য পেয়েছিলেন সহকর্মী হিসেবে ।
  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকালীন সময়ে তাঁর সহপাঠী ছিলেন – মুহম্মদ আবদুল হাই ও আহমদ হোসেন ।
  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকালীন সময়ে তিনি শিক্ষকদের মধ্যে যাদের সহাচর্য পেয়েছিলেন – ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়, মোহিতলাল মজুমদার,, আশুতোষ ভট্টাচার্য, জসীমউদ্দীন প্রমুখ যশস্বী পন্ডিতবর্গের ।
  • ’বার্ট্রান্ড রাসেলের’ ভাবশিষ্য ছিলেন – মোতাহের হোসেন চৌধুরী ।
  • ”ধর্ম সাধারণ লোকেরে সংস্কৃতি, আর সংস্কৃতি শিক্ষিত মার্জিত লোকের ধর্ম ।” উক্তিটি – মোতাহের হোসেন চৌধুরী ।
  • ’সংস্কৃতির কথা’ কোন জাতীয় রচনা – প্রবন্ধগ্রন্থ ।
  • ’সংস্কৃতির কথা’ প্রবন্ধের রচয়িতা – মোতাহের হোসেন চৌধুরী ।

মোতাহের হোসেন চৌধুরী এর জীবনী

  • ”ধর্ম সাধারণ লোকের সংস্কৃতি, আর সংস্কৃতি শিক্ষিত মার্জিত লোকের ধর্ম ।” কোন প্রবন্ধের অন্তর্গত – ’সংস্কৃতির কথা’ ।
  • তাঁর ‘সংস্কৃতির কথা’ প্রবন্ধগ্রন্থটি যে সালে সম্পাদিত হয়েছিল – ১৯৫৮ সালে ।
  • ’মুসলমান সাহিত্যিকদের চিন্তাধারা’ কোন জাতীয় রচনা – প্রবন্ধগ্রন্থ ।
  • ’সুখ’ গ্রন্থটির রচয়িতা – মোতাহের হোসেন চৌধুরী ।
  • তাঁর রচিত ’সুখ’ গ্রন্থটি প্রকাশিত হয় – ১৯৬৫ সালে ।
  • ’সুখ’ কোন গ্রন্থের ভাবানুবাদ – বার্ট্রান্ড রাসেলের Conquest of Happiness গ্রন্থের ।
  • ’সভ্যতা’ কোন জাতীয় রচনা – অনুবাদ গ্রন্থ ।
  • ’সভ্যতা’ অনুবাদ গ্রন্থটির রচয়িতা – মোতাহের হোসেন চৌধুরী ।
  • ১৯৬৫ সালে -’সভ্যতা’ অনুবাদ গ্রন্থটি সম্পাদিত হয় ।
  • ক্লাইভ বেলের Civilization গ্রন্থ অবলম্বনে রচিত – ’সভ্যতা’ ।
  • ”রুচিবান লোক দশের একজন নয়, দশ পেরিয়ে একাদশ ।” উক্তিটি – মোতাহের হোসেন চৌধুরীর ।
  • বিশিষ্ট এই লেখক মৃত্যুবরণ করেন – ১৯৬৫ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *