রূপচর্চার এক অনবদ্য উপাদান অ্যলোভেরা জেলের উপকারিতা 

আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে অ্যালোভেরা জেলের ঔষধি গুনের বর্নণা করা আছে।ত্বকের পরিচর্চায়, চুল ঘন করা, লম্বা করা সহ সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে অ্যালোভেরার জুরি নাই। অ্যালোভেরা ঘৃতকুমারী নামেও পরিচিত। প্রাচীন কাল থেকেই এই ঘৃতকুমারী রূপচর্চায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ঔষধি গুন সম্পূর্ণ এই অ্যালোভেরা সৌন্দর্যচর্চায় খুবই পরিচিত একটা নাম। অ্যলোভেরা জেলের উপকারিতা 

অ্যালোভেরা আনাদের ত্বকের কি কি উপকার করে

 ব্যবহার ঃ

 

১/ অ্যালোভেরায় আছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বকের গভীরে গিয়ে ভিটামিন এ, বি, সি ও এ  উপাদান পুষ্টি যোগায়। রোদে পোড়া দাগ দূর করে ত্বকের আদ্রতা ঠিক রাখতে এটি ব্যবহার করা হয়। ২ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল আর অর্ধেক লেবুর রস মিশিয়ে এই মাস্ক সান বার্ন হওয়া স্থানে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

 

২/ শুষ্ক ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা খুবই উপকার। অ্যালোভেরার জেল শুষ্ক ত্বককে করে নরম, মসৃন ও উজ্জ্ব। 

 

৩/ অ্যালোভেরার জেল ত্বকের মৃত কোষ দূর করে। জেলের সাথে এক চামচ ওটস আর এক চামচ ওলিভওয়েল লাগিয়ে ২০/৩০ মিনিট রেখে নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে  ফেলতে হবে। এটি সপ্তাহে  ১/২ বার বয়বহার করলেই হয়।

 

৪/ অ্যান্টিসেপটিক গুন সম্পূর্ণ অ্যালোভেরা ক্ষত স্থানে লাগালে ২/৩ দিনের মধ্যেই ক্ষত স্থান শুকিয়ে যায়।

 

 ৫/ নিয়মিত অ্যালোভেরার জেল ঠোঁটে লাগালে ঠোঁটের রং হয় উজ্জ্বল, মসৃন ও ঠোঁট হয় নরম। প্রতিদিন চালের গুড়া ও অ্যালোভেরা জেলের মিশ্রণ তৈরি করে ঠোঁটে লাগিয়ে ১০ মিনিট রেখে ধুয়ে নিলেই হয়ে যায়।

 

৬/   ত্বকের সাথে সাথে  চুলের জন্য অ্যালোভেরা অনেক উপকারী । অ্যালোভেরা ব্যবহারে মাথার ত্বকের পি এইচ ঠিক থাকে আর খুশকিও দূর হয় এবং চুল হয় নরম ও সিল্কি।

 

৭/ অ্যালোভেরার প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান  রয়েছে, যা একনে সারাতে আর নুতন কোষ জন্মাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে। 

 

৮/ ডায়বেটিসের রোগীদের জন্য অ্যালোভেরা খুবই উপকার। অ্যালোভেরার রস রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে  ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। 

 

৯/ অ্যালোভেরায় রয়েছে অ্যান্টি – ইনফ্লমেটরি উপাদান। তাই এর রস খেলে শরীরে মেদ জমে থাকতে পারে না।

 

১০/ অ্যালোভেরার রস দাঁত ও মাড়ির ব্যথা ও ইনফেকশান দূর করে। 

 

১১/ শরীরে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে অ্যালোভেরা জেলে খুবই সক্রিয়। 

 

১২/ অ্যালোভেরার জেল খেলে শরীরের দূষিত রক্ত বেড়িয়ে যায় এবং হার্ট সুস্থ থাকে।   

 

★ অ্যালোভেরার ক্ষতিকর দিক —

 

অ্যালোভেরার পাতা কাটলে যে হলদে রসালো উপাদান বের হয়, তার সঙ্গে ‘অ্যালো লেটেক্স’নামের ক্ষতিকর রাসায়নিক থাকে। যা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এই ল্যাটেক্স অ্যালোভেরার পাতার মধ্যেই থাকে। এটি যদি খাওয়া হয় তবে শরীরের বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে। তাই অ্যালোভেরা জেল ত্বকে ব্যবহার ও খাওয়ার সময় এই হলদে রস সরিয়ে নিতে হবে। 

 

পাতাটি কাটার পর কিছুক্ষণ রেখে দিলেই ঔ রস বেরিয়ে আসে। তারপর ধুয়ে ব্যবহার করতে হবে।

সহজলোভ্য ও অতি কম দামেই এই অ্যালোভেরা আমাদের আশেপাশেই পাওয়া যায়।

 

BY
ত্রোপা চক্রবর্তী

Leave a comment

Your email address will not be published.