লকডাউনের বন্ধে ঘরোয়া উপাদান দিয়ে ত্বকের যত্ন ও সৌন্দর্য বাড়ানোর পদ্ধতি

জানেন কি ঘরোয়া উপাদান দিয়ে খুব সহজে ও অল্প দিনেই ত্বককে উজ্জ্বল ও চকচকে করা  সম্ভব!! আসুন জেনে নেই কিভাবে।।।। 

করোনা!!!ভাইরাস!!! সত্যি একটা সিরিয়াস বিষয়।অবশ্যই সচেতন হওয়া জরুরি।কারন গোটা পৃথিবী ভিষন রকম এক মানসিক চাপ উৎকন্ঠার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এখন। আর সেই উৎকন্ঠাটা সকলের পরিচিত করোনা ভাইরাস।ছোট্ট একটি ভাইরাসের কারনে প্রায় বেশির ভাগ দেশই লক ডাউন। তবে আমাদের মাথায় রাখা উচিত করোনা কি ভয়ানক রূপ নিতে পারে।সারাক্ষণ করোনার ভয়ে অস্থির গোটা বিশ্ব।

ত্বকের যত্ন

 

তবে যারা সারাক্ষণই ঘরে বাহিরে নানা কাজে ছুটাছুটি করতেন তাদের জন্য এটা একটা বিরাট অবসর।এই সময়টাকে কাজে লাগিয়ে নিজেকে গুছিয়ে নিতে পারেন তারা।সারাক্ষণ ছুটাছুটি করে যারা হারিয়েছেন তাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা তারা ঘরোয়া উপাদান দিয়েই ত্বকে প্রানবন্ত ও উজ্জ্বল করে নিতে পারেন।ঘরোয়া পদ্ধতি এই জন্য যে লকডাউন মানে পার্লার ও বন্ধ বা খোলা,থাকলেও যাওয়া ঠিক হবে না তাই ঘরোয়া পদ্ধতিই অবলম্বন করা শ্রেয়। নিম্নে ত্বক উজ্জ্বল করার কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি দেয়া হলো——-

 

কমলা দিয়ে ত্বকের যত্ন :-

একটি কমলালেবু নিয়ে মাঝ দিয়ে কেটে তাতে চিনি লাগিয়ে মুখে, হাতে ঘোঁষলে তা ত্বককে মসৃন করে ও বলিরেখা দূর করবে।কমলাতে আছে ভিটামিন – সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে বলে এটি ত্বকে মসৃন করে কমলার সাথে চিনি মেশানো থাকে বলে এটি স্ক্রাবারের কাজ করে।  এটি ত্বক কুচঁকানো রোধে ও বলিরেখা দূর করতে কার্যকর। ভিটামিন – সি, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ত্বকের লাবন্য ধরে রাখতে সহায়তা করে বহু বছর এবং দূর করে ব্রণ, মুখের কালো দাগ। চির তারণ্য ধরে রাখতে সহায়তা করে।

কমলা দিয়ে ত্বকের যত্ন

 

মসুর ডাল দিয়ে ত্বকের যত্ন :-

মসুর ডাল আমারের ত্বকে লেগে থাকা ময়লা পরিস্কার করে এবং ত্বক উজ্জ্বলকরে আর ত্বকের বলিরেখা দূর করা ও ত্বক ঝুলে যাওয়া রোধ করে।এই মসুর ডালের মিশ্রন বানাতে যে যে উপকরণ লাগবে তা হলো :

মসুর ডাল দিয়ে ত্বকের যত্ন

২ টেলিল চামচ মিহি করে বাটা মসুর ডাল, প্রয়োজন  গোলাপ জল ও ১ চা চামচ মধু।২/৩ মিনিট ধরে ঘষে ঘষে এই মিশ্রনটি মুখে লাগাতে হবে এবং শুকিয়ে গেলে পরিস্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে।

 

মধু দিয়ে ত্বকের যত্ন ও ফেসিয়াল :-

মধু আমাদের ত্বকের যত্নে  খুবই কার্যকরী এবং ইনস্টেন্ট গ্লোয়িং ত্বক পেতে সহায়তা করে।মধুতে আছে অ্যান্টি ফাঙ্গাল, অ্যান্টি ব্যকটিরিয়া ও অ্যান্টি ইনফ্লেমারি প্রপারটিস যা আমাদের ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে, ব্রণ সমস্যা,দূর করে ও ত্বক দ্রুত উজ্জ্বল করতে সহায়তা করে। চারটি ধাপে মধু দিয়ে ফেসিয়াল করা যায় ঘরে বসেই। নিম্নে তা দেয়া হলো

মধু দিয়ে ত্বকের যত্ন ও ফেসিয়াল

প্রথম ধাপ :  একটি কাচের বাটিতে এক চামচ মধু নিয়ে তার সাথে দুই চামচ দুধ মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ে  ক্লিনজার তৈরি করে তা একটি কটন প্যাডে মিশ্রনটি নিয়ে মুখে লাগিয়ে ভালো করে ক্লক ওয়াইস ১০ মিনিট ম্যাসাজ করে পরিস্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।এই মিশ্রনটি আমাদের মুখের ধুলা, ময়লা ও তৈলাক্তভাব দূর করবে।

দ্বিতীয় ধাপ :  এবার একটি স্ক্রাবার তৈরি করতে হবে মধু দিয়ে।মধু দিয়ে স্ক্রবার তৈরির জন্য একটি কাঁচের বাটিতে এক চামচ মধু, আধা চামচ কফি ও আধা চামচ চিনি দিয়ে স্ক্রাবার তৈরি করে নিতে হবে।এই স্ক্রাবারটি হালকা ভাবে স্কিনে লাগিয়ে ম্যাসাজ জরলে স্কিনের সমস্ত ডেড স্কিন চলে যাবে আর ত্বক হয়ে উঠবে বেবি স্কিনের মত নরম।

তৃতীয় ধাপ : এবার এক চামচ টক দই ও এক চাৃচ মধু মিশিয়ে ম্যাসাজ ক্রিম তৈরি করে তা মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট ম্যাসেজ করতে হবে।টক দইয়ে আছে লেকটিল অ্যাসিড যা আমাদের ত্বকের কাল দাগ, ছোব ও সান টেনিং দূর করে। আর ত্বককে করে উজ্জ্বল ও ফর্সা। এর পর পরিস্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।

চতুর্থ ধাপ : এই ধাপে মধু দিয়ে হানি ব্রাইটিনিং ফেস প্যাক তৈরি করে তা ত্বকে ব্যবহার করতে হবে।এই ফেস প্যাক তৈরির জন্য একটি কাঁচের বাটিতে এক চামচ বেসন, এক চামচ মুলতানি মাটি, এক চামচ মধু, এক চামচ লেবুর রস ও এক চামচ কাঁচা দুধ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর এই মিশ্রনটিকে মুখে লাগিয়ে নিতে হবে।১৫ মিনিট রাখার পর পরিস্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে।

উপরে উল্লেখিত উপায়ে মধু ব্যবহার করে সহজেই ত্বকের উজ্জ্বল, লাবণ্য ধরা পরবে । 

 

টমেটো দিয়ে ত্বকের যত্ন :-

টমেটো দিয়েও ত্বকের যত্ন নেয়া যায় ও ফেসিয়াল ও করা যায়। এতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ে, ফর্সা হয় ও ত্বক হয় টানটান।টমেটো দিয়েও ক্লিনজার,স্ক্রবার ও ফেস প্যাক তৈরি করে ফেসিয়াল করা যায়। এই ফেসিয়ালটি করা যায় তিন ধাপে। যেমন—-টমেটো দিয়ে ত্বকের যত্ন

প্রথম ধাপ:  টমেটো নিয়ে তার পেস্ট তৈরি করে ছেকে টমেটোর রস বের করে নিতে হবে।এবার একটি কাঁচের পাত্রে এক চামচ টমেটোর রস, এক চামচ কাঁচা দুধ ও এক চামচ লেবুর রস নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ক্লিনজার তৈরি করে একটি কটন প্যাড দিয়ে মুখে ভালো করে মেখে ১০ মিনিট রেখে পানি দেয়ে মুক ধুয়ে নিতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপ : এবার তৈরি করতো হবে স্ক্রবার।আর স্ক্রবার তৈরির জন্য দুই চামচ চালের গুড়া, এক চামচ টমেটো পেষ্ট ও এক চামচ কাঁচা দুধ মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ো স্ক্রাবার তৈরি করে মুখে লাগিয়ে ভালো করে মুখ স্ক্রাব করে নিতে হবে।৫ মিনিট এই স্ক্রাবার দিয়ে ম্যাসেজ করতে হবে।টমেটোতে প্রক্তিক এসিড আছে যা আমাদের মুখের বাড়তি তেল বের করে দেয় ও টমেটোতে আছে ভিটামিন এ যা আমাদের মুখের কাল দাগ দূর করেও আছে ম্যাগনেসিয়াম যা আমাদের ত্বকে করে উজ্জ্বল, চমকদার ও ফর্সা।আর চালের গুড়ার কারনে ডেড স্কিনগুলোও রিমুভ হয়।   

তৃতীয় ধাপ : এই ধাপে ফেসপ্যাক বানিয়ে মুখে লাগানো হয়।এই জন্য দরকার এক চামচ বেসন, এক চামচ টমেটোর পেষ্ট, এক চামচ টক দই।এই মিশ্রনটি ভালো করে মিশিয়ে মুখে লাগাতে হবে।বেসন ও টমেটোর মিশ্রন আমাদের ত্বকে করে ফর্সা ও উজ্জ্বল।আর এক দইয়ে থাকে ল্যাকটিক এসিড যা আমাদের ত্বকের রংকে করে হালকা ও কোন কালো দাগ থাকলেও দূর করে ত্বকে করে তোলে চমকদার।

 

আলু দিয়ে ত্বকের যত্ন :

আলু খুবই সহজলভ্য একটি সবজি যা শুধুমাত্র আমাদের রান্নার স্বাদই বাড়ায় না এটি আমাদের ত্বকের যত্নেও যথেষ্ট উপকারী আমাদের উস্ক খুস্ক ত্বকে মসৃন করতে আলু রস খুবই উপকারী।আলুর রসের সাথে আর দুইটি উপাদার মিশিয়ে মুখে সপ্তাহে তিনদিন লাগালে আমাদের ত্বক হবে মসৃন, উজ্জ্বল, দাগহীন। একটি কাঁচের বাটিতে চার চামচ আলুর রস, চার চামচ টমেটোর রস ও প্রয়োজন মত চালের গুরা বা আটা নিয়ে প্যাষ্ট তৈরি করে নিবো।এবার এই পেষ্টটি মুখে মেখে মিনিট ১৫ রেখবো আর মুখ, হাত, পা সব জায়গায় লাগানো যাবে।এটি দ্রুত ত্বক ফর্সা করে কারন আলুতে রয়েছে ফসফরাস, জিংক, পটাসিয়াম, ভিটামিন বি ও ভিটামিন সি কমপ্লেক্স। এই উপাদানগুলো প্রকৃতিক ব্লিচিং হিসাবে কাজ করে। এর পলে আমাদের ত্বকের উপরিভাগের রং হালকা করে, ত্বক অবাঞ্ছিত কালো দাগ দূর করে। 

 

এলোভেরা দিয়ে ত্বকের যত্ন :

এলোভেরা খুবই উপকারী একটি উপদান ত্বকের যত্নে। এটি মুখের কালো দাগ, রোদে পুরা,দাগ ও মেছতার দাগ দূর করে।এলোভেরা দিয়ে প্যাক তৈরি করতে যে উপাদানগুলো লাগবে তা হলো এক চামচ বেসন, এক চামচ মধু, এক চামচ চারভাগের এক ভাগ লেবুর রস,  এক চিমটি পরিমান হলুদের গুড়া ও হোম মেড এলোভেরা জেল এক চামচ মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করবো। এই পেষ্টি মুখে লাগিয়ে রাখবো আর শুকিয়ে গেলে নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলবো।এলোভেরাতে আছে ভিটামিন এ সি ই ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা মুখের দাগ কমাতে বিশেষ ভাবে উপকারী।এটিপ্রথম সপ্তাহো টানা ব্যবহার করতে হবে এর পরের সপ্তাহ থেকে ২/৩ দিন ব্যবহার করলেও হবে।

 

ত্বকের যত্নে ডিম :-

ডিম প্রতয়েকের ঘরেই থাকে আর এই ডিম দিয়েও খুব সহজে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ানো সম্ভব।মুখের ব্রণ এড়াতে ডিম ব্যবহার করা যায়।ডিমের কুসুম সরিয়ে ডিমের সাদা অংশের সাথে এক চামচ মধু ও এক চামচ বাদম তেল ভালো ভাবে মিশিয়ে মুখে লাগাতে হবে। ১৫ মিনিট রেখে গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে।এতে ত্বকের উজ্জ্বলতাও বাড়ে আর ডিমের সাদা অংশ চোখের নিচের ফোলাভাব দূর করতেও সহায়তা করে।ত্বকের যত্নে ডিম

 

হাতের কাছের ঘরোয়া উপাদানগুলো দিয়ে খুব সহজেই  ত্বক উজ্জ্বল, মসৃন ও চকচকে করা সম্ভব।তাই লকডাউনের কারনে সবকিছু যখন বন্ধ সেই সুযোগে এই ঘরোয়া উপাদানগুলো দিয়ে   খুব সহজে নিজের ত্বকের টাইপ বুঝে চর্চা করে সবারই ঝলমলে, উজ্জ্বল ও চকচকে ত্বকের অধিকারী হওয়া সম্ভব খুব অল্প সময়ে।

 

 

By 
ত্রোপা চক্রবর্তী

 

Leave a comment

Your email address will not be published.