হুমায়ুন আহমেদ -রুমালী -(পর্ব-১৮)

কাল কোন অংশটি হবে ডিরেক্টর সাহেব আমাকে বলেন নি। আমার ধারণা পুকুরের অংশটা হবে। কোন শাড়ি পরব—তাও ঠিক হয় নি। তবে শাড়ি নিয়ে আমাকে চিন্তা করতে হবে না। এই সব ব্যবস্থা ডিরেক্টর সাহেব করে রেখেছেন। প্রতিটি পােষাক দু’সেট করে কেনা আছে। একটা সের্ট আলাদা করা। ছবি রিলিজ না হওয়া পর্যন্ত সেই সেটে হাত দেয়া হবে না। যদি হঠাৎ কোন প্যাচ

হুমায়ুন আহমেদ রুমালী ওয়ার্কের প্রয়ােজন হয়। এইসব ব্যাপারে ডিরেক্টর সাহেবের কাজ কর্ম নিখুঁত। 

পুকুরের পারে আমি কী ভাবে বসব ? চিত্রনাট্যে বসার কথা থাকলেও আমার ধারণা আমাকে বসতে হবে না। একটা মেয়ে দৌড়ে এসে পুকুর পারে । হঠাৎ করে বসে যেতে পারে না। তা ছাড়া সুন্দর করে বসতে হলে হাঁটু গেড়ে বসতে হয়। শাড়ি নষ্ট করে কোন মেয়ে কি হাঁটু গেড়ে বসবে? সবচে ভাল হয়। পুকুরের যদি শান বাঁধানাে ঘাট থাকে। আমি শুনেছি যে পুকুরে শুটিং হবে সেখানে বাঁধানাে ঘাট নেই । জংলী ধরনের পুকুর। চারদিক গাছপালা ঝােপঝাড় গজিয়ে জঙ্গলা হয়ে আছে। অবশ্যি জংলী পুকুরেরও আলাদা সৌন্দর্য আছে। গাছপালায় ঢাকা ছায়াময় একটা পুকুর। সেই পুকুরের শান্ত নিস্তরঙ্গ টলটলে জল । পুকুরের জলের কথা ভেবে ভেবে আমার পানির পিপাসা আরাে বাড়ল । আমি কম্বল ফেলে দিয়ে উঠে বসলাম। মা সঙ্গে সঙ্গে বললেন, কী হয়েছে-রে বকু ? 

আমি বললাম, খুব পেট ব্যথা করছে মা।। 

পেট ব্যথার কথা বললাম যাতে মা আমাকে বিরক্ত না করেন। যদি বলতাম—তৃষ্ণা পেয়েছে পানি খাব তাহলে মা বাকি রাতটা কথা বলে বলে আমাকে বিরক্ত করে মারবেন । পেটে ব্যথা শুনলে অসুস্থ মেয়েকে হয়ত ততটা বিরক্ত করবেন না । শুয়ে থাকতে বলে মাথায় হাত বুলিয়ে দেবেন। 

‘হঠাৎ পেট ব্যথা করছে কেন ? 

‘আমি কী করে বলৰ কেন? ব্যথায় মরে যাচ্ছি। দেখি মা, একগ্লাস পানি দাওতাে।’ 

‘বাথরুমে যাবি ? 

না ? ‘বাথরুম করলে পেট ব্যথা কমবে।’ ‘বললামতাে বাথরুম পায় নি। ‘আয় আমি নিয়ে যাচ্ছি।’ 

‘কী অদ্ভুত কথা তুমি যে মা বল ! বাথরুম পায় নি তারপরেও তুমি আমাকে জোর করে বাথরুমে নিয়ে যাবে। তারপর কী করবে কমােডে বসিয়ে । রাখৰে ? পানি চাচ্ছি পানি দাও।’ 

মা পানি এনে দিলেন। আমি পানি খেয়ে সঙ্গে সঙ্গে শুয়ে পড়লাম । মা বললেন, বকু ব্যথা কি বেশি ? 

আমি বললাম, “। পেটে তেল মালিশ করে দেব?’ কিছু মালিশ করতে হবে না।’ পেটের নীচে বালিশ দিয়ে উপুর হয়ে শুয়ে থাক।’ ‘ডাক্তারী ফলিও না মা।’ ‘তুই আমার সঙ্গে এত বিশ্রী ব্যবহার করছিস কেন? ‘বিশ্রী ব্যবহার কী করলাম ? ‘তাের স্বভাব চরিত্র বদলে যাচ্ছে বকু।’ 

দয়া করে চুপ করে থাকবে মা। পেটের ব্যথায় বাঁচি না। তােমার বকবকানি এখন অসহ্য লাগছে।’ 

‘মাথায় হাত বুলিয়ে দেব ? ‘আমার যন্ত্রণা পেটে—তুমি মাথায় হাত বুলাবে কেন?’ ‘ডাইনিং রুমে তুই ঐ ফাজিলটার সঙ্গে এত কী কথা বলছিলি ? ‘কার কথা বলছ, সেলিম ভাই ? ‘আদুরে গলায় সেলিম ভাই বলবি নাতো- রাগে গা জ্বলে যাচ্ছে। ‘সেলিম ভাই না বলে যদি শুধু সেলিম বলি তাহলে কি তুমি খুশি হবে?’ 

‘ফাজিল ধরনের এইসব ছেলের সঙ্গে তাের এত কথা বলার দরকারটাই বা কী ? 

‘আচ্ছা যাও আর কথা বলব না। পেটের ব্যথায় মরে যাচ্ছি তুমি এর মধ্যেও প্যাচাল শুরু করলে ? দয়া করে চুপ কর।’ 

‘ব্যথা খুব বেশি ?” 

‘মঈন ভাইয়াকে খবর দেব ? 

‘মঈন ভাইয়াকে খবর দেব মানে? উনাকে কেন খবর দেবে ? উনি কি ডাক্তার ?’ 

ডাক্তার না হােক দলের মাথা। বিপদ আপদ হলে তাকেইতাে সবার আগে জানাতে হবে, প্রয়ােজন হলে ডাক্তারের ব্যবস্থা করবে । তুইতাে ফেলনা না। তুই এই ছবির সেকেন্ড নায়িকা। | ‘তােমার ধারণা নায়িকার পেট ব্যথা শুনে উনি ছুটে এসে নায়িকার পেটে হাত দিয়ে বসে থাকবেন?’ 

‘তুই কী ধরনের কথা বলছিস! নােংরা ধরনের কথা শিখলি কোথায় ? 

‘তােমার কাছ থেকে শিখেছিআমার কাছ থেকে শিখেছিস ? আমি নােংরা কথা বলি ?। 

অবশ্যই বল। তুমি আর জালালের মা— তােমরা কর কী? সময় পেলেই গুজগুজ গুজগুজ তােমরা কি ধর্মীয় আলাপ কর ? তােমার কি ধারণা তােমাদের গল্প আমার কানে যায় না?‘ 

‘জালালের মা গল্প বলে আমি শুধু শুনে যাই।’ 

‘গল্পগুলি কী রকম? কোন নায়িকা কী নষ্টামী করল কাকে রাতে কার ঘরে পাওয়া গেল। 

‘একজন কেউ আগ্রহ করে গল্প করলে আমিতাে তার মুখ চাপা দিতে পারি না।| ‘না পারলে নাই তুমি ঘুমুতে এসােতাে মা আর কথা না। তুমি নিজে ঘুমাও আমাকেও ঘুমুতে দাও। 

মা সঙ্গে সঙ্গে মশারীর ভেতর ঢুকলেনমাঝে মাঝে মা আমাকে ভয় পান। এই মুহুর্তে তিনি আমাকে ভয় পাচ্ছেনমা আমার ভয়ে ভীত, এই দৃশ্যটা দেখতে ভাল লাগে । 

বকু তাের পেট ব্যথাটা কমেছে ? ‘হঁ্যামঈন ভাইয়ার কাছে তাের ব্যাপারে নালিশ করতে হবে । 

আদুরে গলায় মঈন ভাইয়া মঈন ভাইয়া বলবে নাতাে মাবিশ্রী লাগে। মনে হয় তুমি উনার প্রেমে পড়ে গেছ‘ 

আমি প্রেমে পড়ে গেছি মানে?‘ 

‘চুপ করে ঘুমাওতাে মাআমার আবার পেট ব্যথা করছেমনে হয় এপেনডিসাইটিস।’ 

মা আর কথা বললেন নাআমি ঘুমুবার চেষ্টা করছিমনে হচ্ছে আজ রাতটা নিঘুম কাটবে। হয়ত সকালে দেখা যাবে চোখের নীচে কালি পড়েছে। সেই কালি ঢাকতে মেকাপম্যানের কষ্ট হবে । 

মা। জেগে আছ?‘ 

সেলিম ভাইয়ের ব্যাপারে তুমি কি আপসেট

মা জবাব দিলেন না। আমি হালকা গলায় বললাম, আপসেট হয়াে নাসেলিম ভাই কিন্তু সহজ মানুষ নাভ্যাবলার মত ঘুরে বেড়ালেও তিনি মােটেই ভ্যাবলা না ।। 

তােকে সে যা বুঝিয়েছে তুই তাই বুঝেছিস

Leave a comment

Your email address will not be published.