১৩৭ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা

এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে শ্রীলংকাকে রানের ১৩৭ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা করেছে বাংলাদেশে। প্রথমে ব্যাট করে নেমে মুশফিকুর রহিমের দুর্দান্ত ও ক্যারিয়ারসেরা ১৪৪ রানের সুবাদে ২৬১ রানের বড় লক্ষ্য দেয় টাইগাররা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে মাশরাফিবাহিনীর বোলিং তান্ডবে মাত্র ১২৪ রানে গুটিয়ে যায় লংকানদের ইনিংস। প্রথম ম্যাচের এই অনবদ্য জয়ে বাংলাদেশের সুপার ফোরে খেলা নিশ্চিত হল। ২০ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানদের মুখোমুখি হবে টাইগাররা।

এর আগে, লাসিথ মালিঙ্গার বোলিং ঝড়েও প্রথমে ব্যাট করে শ্রীলংকাকে ২৬২ রানের বিশাল লক্ষ্য দেয় বাংলাদেশ। টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তবে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। পরে মুশফিক ও মিথুনের ব্যাটিং নৈপুণ্যে ২৬১ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় টাইগাররা। নান্দনিক ব্যাটিংশৈলীতে ১৪৪ রানের  সেঞ্চুরি তুলে নেন মুশফিকুর রহিম। ১১ চার ও চারটি বিশাল ছক্কায় করেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারে পঞ্চম শতক। তার সেঞ্চুরি ও মিথুন আলির ৬৩ রানের ইনিংস ছাড়া সুবিধা করতে পারেননি আর কেউ। তবে শেষদিকে চোট সত্ত্বেও মাঠে ব্যাটিংয়ে নেমে ব্যতিক্রমী এক ইতিহাস গড়েছেন তামিম ইকবাল। এক হাতে তার ব্যাট করার দৃষ্টান্ত স্মরণীয় হয়ে থাকবে এদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে। ২৩ রানে ৪ উইকেট তুলে নিয়েছেন মালিঙ্গা। একপ্রান্ত থেকে ইনিংসের শেষ পর্যন্ত একাকী লড়াই করে যান মিস্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিক।

বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা

২৬২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় শ্রীলংকা। দলীয় ২২ রানে কুশল মেন্ডিসকে শূণ্য হাতে প্যাভিলিয়নে ফেরান মোস্তাফিজ। এরপর থেকে একটু পর পরই উইকেট পড়েছে লংকানদের। টাইগারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে এক পর্যায়ে মাত্র ৬২ রানে ৫ উেইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে তারা। যা খানিকটা তাণ্ডব তা একাই চালানোর চেষ্টা করেন থারাঙ্গা। তার বিদায়ের পর কেউই সেভাবে সুবিধা করতে পারেননি। বাংলাদেশের ধারাবাহিক বোলিং আগ্রাসনের মুখে শেষ পর্যন্ত ১ রানেই থেমে যায় ম্যাথুসবাহিনীর ইনিংস। রানের বিশাল জয় পায় বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ড:

বাংলাদেশ: ২৬১ (৪৯.৩ ওভার)

মুশফিক ১৪৪, মিথুন ৬৩, মিথুন ১৫, মাশরাফি ১১

মালিঙ্গা ৪/২৩।

শ্রীলংকা: ১২৪
থারাঙ্গা ২৭, লাকমল ২০

মাশরাফি ২/২৫, মোস্তাফিজ ২/২০, মিরাজ ২/২১

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম , মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিথুন, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান।

শ্রীলংকা একাদশ: উপুল থারাঙ্গা, ধনঞ্জয় ডি সিলভা, কুশল পেরেরা, কুশল মেন্ডিস, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস (অধিনায়ক), থিসারা পেরেরা, দাসুন শানাকা, লাসিথ মালিঙ্গা, সুরাঙ্গা লাকমল, অমিলা অপন্সো, দিলরুয়ান পেরেরা।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

source-bd24live.com

Leave a comment

Your email address will not be published.