পাপ

#পাপ # শাওন_মল্লিক ও খেলা ভালোবাসা– ও খেলা সর্বনাশা! জেনে শুনে করেছি পাপ সে পাপে দহন আছে, জ্বলে পুড়ে মরছি আজো মরে গিয়ে বাঁচার মাঝে।         Read More হুমায়ূন আহমেদ এর লেখা বাদশাহ নামদার পর্ব – ১

বিয়ের রাত – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

আচ্ছা মশাই, আত্মবিশ্বাস জিনিসটা আসলে কীরকম বস্তু তা বলতে পারেন?…….বলা কঠিন। তবে যতদূর মনে হয় লোহার রডের মতো একটা শক্ত জিনিস মেরুদণ্ডের ভিতর দিয়ে ঠেলে মাথা অবধি ওঠে। তাতে হয় কি, ঘাড়–গর্দান সব সোজা থাকে, মাথাটাও সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ে না। আমাদের পটলবাবুকে তো দেখেছি, সবসময়ে যেন খাড়া হয়ে আছেন। তাই হবে। ওই রডটা আমার… Continue reading বিয়ের রাত – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

একটা চোর ধরা পড়ল – হুমায়ূন আহমেদ

দুপুর বেলা আমাদের ছাদে একটা চোর ধরা পড়ল।…….আমি খবরের কাগজ নিয়ে রোদে বসেছিলাম। ছুটির দিনে আরাম করে কাগজ পড়ব–হৈ চৈ শুনে ছাদে গেলাম।…..সেখানে শিশুদের একটা জটলা। জটলার মাঝখানে সুখীসুখী চেহারার একজন লোক। গোল গোল মুখ। সুন্দর করে চুল আচড়ানো। পরনে লুঙ্গী, সাদা। পাঞ্জাবী। আমাদের কাজের ছেলেটি শক্ত করে লোকটির হাত ধরে আছে এবং কিছুক্ষণ পর… Continue reading একটা চোর ধরা পড়ল – হুমায়ূন আহমেদ

তারপর.. – উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী

এক যে রাজা; তার ভারি গল্প শোনার শখ। কিন্তু তা থাকলে কি হয়, রাজামশাইকে কেউ গল্প শুনিয়ে খুশি করতে পারে না।…….রাজামশাই বললেন, ‘যে আমাকে গল্প শুনিয়ে খুশি করতে পারবে, তাকে আমার অর্ধেক রাজ্য দিব, না পারলে কান কেটে নিব’। তা শুনে দেশ বিদেশের কত ভারি ভারি নামজাদা গল্পওয়ালা কোমর বেঁধে গোঁফে তা দিয়ে গল্পের ঝুড়ি… Continue reading তারপর.. – উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী

হাওয়া বন্দুক – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

দিন যায়। থাকে কথা।…….মণিকার দিন যায়। কিন্তু কীভাবে যায় কেউ কি তা জানে? তার সুখের ধারণাও খুব বড় নয় দুঃখের ধারণাও নয় বড়। ছোট সুখ, ছোেট দুঃখে দিন তার কেটে যেত। বুকের মধ্যে প্রজাপতির মতো উড়ন্ত একটুখানি সুখ, বা ছোট্ট কাঁটার মতো একটু দুঃখ—এ তো থাকবেই। নইলে বেঁচে যে আছে তা বুঝবে কেমন করে মণিকা!… Continue reading হাওয়া বন্দুক – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

পেঁপেসেদ্ধ – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

যারা টিফিনে পেঁপেসেদ্ধ খায় আমি তাদের খুবই শ্রদ্ধা করি।…………কেন মশাই, যারা পেঁপেসেদ্ধ খায় তাদের শ্রদ্ধা করার কী আছে?……….যারা এভারেস্টে ওঠে, বানজি জাম্প দেয় বা ট্রাপিজের খেলা দেখায় তাদের প্রতি কি আমাদের শ্রদ্ধা হয় না? আমি যা পারি না তা আর একজন যখন অনায়াসে পারে তখন শ্রদ্ধাকে। ঠেকানো মুশকিল। আপনার কথা শুনে মনে হচ্ছে আপনি পেঁপেসেদ্ধ… Continue reading পেঁপেসেদ্ধ – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

কালো ছড়ি – সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ

মুরারিবাবু প্রতিদিনের মতো মর্নিংওয়াকে বেরিয়েছিলেন। ডাক্তারের পরামর্শ, এ বয়সে রোজ ভোরবেলা অন্তত একঘণ্টা হাঁটাচলা করলে হার্টের অবস্থা ভালো থাকে। আঁকাবাঁকা গলিতে হাঁটতে হাঁটতে বড় রাস্তায়। তারপর কিছুদূর হাঁটলেই একটা পার্ক। বার দুই-তিন পার্কটা চক্কর দিয়ে মুরারিবাবু একটা বেঞ্চে কিছুক্ষণ বসে জিরিয়ে নেন। তারপর ধীরেসুস্থে বাড়ি ফেরেন। একদিন পার্কে চক্কর দিয়ে তিনি জিরিয়ে নেওয়ার জন্য একটা… Continue reading কালো ছড়ি – সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ

পান্তাবুড়ির কথা – উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী

এক যে ছিল পান্তাবুড়ি, সে পান্তাভাত খেতে বড্ড ভালোবাসত।….এক চোর এসে রোজ পান্তাবুড়ির পান্তাভাত খেয়ে যায়, তাই বুড়ি লাঠি ভর দিয়ে রাজার কাছে নালিশ করতে চলল।…পান্তাবুড়ি পুকুর ধার দিয়ে যাচ্ছিল। একটা শিঙিমাছ তাকে দেখতে পেয়ে বললে,‘ পান্তাবুড়ি, কোথায় যাচ্ছ?’ পান্তাবুড়ি বললে, ‘চোরে আমার পান্তাভাত খেয়ে যায়, তাই রাজার কাছে নালিশ করতে যাচ্ছি!’ শিঙিমাছ বললে, ‘ফিরে… Continue reading পান্তাবুড়ির কথা – উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী

জাদুকর – হুমায়ূন আহমেদ

আজ হাফ ইয়ারলি পরীক্ষার অংক খাতা দিয়েছে।….বাবলু পেয়েছে সাড়ে আট। শুধু তাই নয়, খাতার উপর লাল পেনসিল দিয়ে ধীরেন স্যার বড় বড় করে লিখে দিয়েছেন, গরু। কী সর্বনাশ!..বাবলু খাতা উল্টে রাখল। যাতে গরু লেখাটা কারো চোখে না পড়ে। কিন্তু ধীরেন স্যার মেঘস্বরে বললেন, এই, বেঞ্চির উপর উঠে দাঁড়া। বাবুল বেঞ্চির উপর উঠে দাঁড়াল। তোর অংক… Continue reading জাদুকর – হুমায়ূন আহমেদ

বোকা কুমিরের কথা – উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী

কুমির আর শিয়াল মিলে চাষ করতে গেল। কিসের চাষ করবে? আলুর চাষ। আলু হয় মাটির নীচে। তার গাছ থাকে মাটির উপরে, তা দিয়ে কোনো কাজ হয় না। বোকা কুমির সে কথা জানতো না। সে ভাবলে বুঝি আলু তার গাছের ফল। তাই সে শিয়ালকে ঠকাবার জন্য বললে, ‘গাছের আগার দিক কিন্ত আমার, আর গোড়ার দিক তোমার।’……………….শুনে… Continue reading বোকা কুমিরের কথা – উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী