আপেল আর পিনাট বাটার কখনই একসঙ্গে খাবেন না

দিনের অন্যসময় ঠিক করে না খেলেও চলবে। কিন্তু প্রাতঃরাশ খুবই গুরুত্বের। যুগ যুগ ধরে একথা আমরা শুনে আসছি। পুষ্টিবিদ থেকে চিকিৎসক সকলেই শরীর সুস্থ রাখতে একই কথা বলেন। ব্রেকফাস্টে সবসময় একটি ফল থাকা আবশ্যক। আর তাই যদি হয় আপেল তাহলে তা শরীরের পক্ষে খুবই ভালো। এছাড়াও থাকে ব্রেড, জুস, চা, চিমসেদ্ধ ইত্যাদি। ফ্যাট এড়ানোর ভয়ে অনেকেই মাখন এড়িয়ে যেতে চান। তার বদলে ব্যবহার করেন ব্রেডস্প্রেড বা পিনাট বাটার।

মনে ভাবছেন খুব স্বাস্থ্যকর কিছু খাচ্ছেন। আদতে কিন্তু শরীরের ক্ষতি করছেন। আমরা বলি সকালে ভালো খেলে সারাদিন মন ভালো থাকে, কাজে মন বসে এবং সর্বোপরি শরীর সুস্থ থাকে। কিন্তু চিকিৎসকরা বলছেন ব্রেকফাস্টে কখনই আপেল আর পিনাট বাটার একসঙ্গে খাওয়া উচিত নয়। কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, আপেল ও পিনাট বাটার দুটোই শরীরের জন্য ভালো। কিন্তু এই দুটি খাবার একসঙ্গে খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যায়। আপেলের মধ্যে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। যা ক্যানসার, উচ্চরক্তচাপ, হাইপারটেনশন নিয়ন্ত্রণে রাখে। পিনাট বাটারে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে। যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। হার্টের সমস্যা থেকে দূরে রাখে। ম্যাগনেসিয়াম থাকে যা হাড়ের গঠনে সাহায্য করে।

এবার আপনার মনে রাখা প্রয়োজন কখনই একসঙ্গে এই দুটি খাবার খাওয়া উচিত নয়। কারণ দুটিই প্রোটিনে ভরপুর। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ম্যাগনেসিয়াম একে অপরের উল্টো প্রতিক্রিয়ায় শরীরের উষ্ণতা বাড়িয়ে দেয়। সেখান থেকে উচ্চরক্তচাপ জনিত সমস্যা তৈরি হয়। তাই আপেল, পিনাট বাটার এবং ড্রাইফ্রুটস একসঙ্গে ব্রেকফাস্টের মেনুতে রাখবেন না। পরিমিত খান, বেছে খান এবং বুঝে খান। সুষম আহার মানেই প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট একসঙ্গে খাওয়া নয়। এতে হিতে বিপরীত হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published.