নবীনচন্দ্র সেন এর জীবনী ও সাহিত্যকর্ম

নবীনচন্দ্র সেন ছিলেন বাংলা সাহিত্যের একজন উল্লেখযোগ্য কবি। তিনি হেমচন্দ্রের ন্যায় হিন্দু জাতীয়তাবোধ উদ্ধুদ্ধ হয়ে সাহিত্যসাধন করেছিলেন। নবীনচন্দ্রের কবিত্ব জায়গায় জায়গায় চমৎকার কিন্তু কবি এই চমৎকারিত্ব সব জায়গায় বজায় রাখতে পারেন নি।

নবীনচন্দ্র সেন এর জীবনী ও সাহিত্যকর্ম

এই কারণে এবং কাব্য বাঁধুনি না থাকায় তাঁর কবিত্বের ঠিকমত বিচার করা কঠিন হয়ে পড়েছে। তিনি কিছু গদ্যরচনাও করেছিলেন। তাঁর আত্মকথা আমার জীবন একটি ‍উপন্যাসের মত সুখপাঠ্য গ্রন্থ। তিনি ভানুমতী নামে একটি উপন্যাসও রচনা করেছিলেন।

  • তিনি জন্মগ্রহণ করেন – ১০ ফেব্রুয়ারি, ১৮৪৭ সালে।
  • অন্যতম এই কবির পৈত্রিক নিবাস – চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানার অন্তর্গত গুজরার (নোয়াপাড়া) গ্রাম, সুপ্রসিদ্ধ প্রাচীন জমিদার পরিবার।
  • তাঁর পিতার নাম – গোপীমোহন রায় এবং মাতার নাম রাজরাজেশ্বরী।
  • বিশিষ্ট এই কবির শিক্ষাজীবন – পাঁচবছর বয়সে তিনি লেখাপড়া শুরু করেন। ১৮৬৩ সালে তিনি চট্টগ্রাম স্কুল (বর্তমানে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল) থেকে এন্ট্রান্স পরীক্ষায় প্রথমশ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন। কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ (বর্তমান প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়) দ্বিতীয় বিভাগে এফএ (১৮৬৫) এবং জেনারেল অ্যাসেমবিজ ইনস্টিটিউশন (স্কটিশচার্চ কলেজ) থেকে বিএ (১৮৬৮) পাশ করেন।
  • তিনি বেঙ্গল সেক্রেটারীয়েটের এসিষ্ট্যান্ট পদে যোগ দেন – ১৭ জুলাই ১৮৬৮ সালে।
  • যশোরে ডেপুটি ম্যাজিষ্ট্রেট ও ডেপুটি কালেক্টর পদে তাকে পদায়ন করা হয় – ১৮৬৯ সালে।
  • তিনি ফেনী হাই স্কুল প্রতিষ্ঠ করেন – ১৮৮৬ খ্রিষ্টাব্দে।
  • তিনি সরকারি চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন – ১ জুলাই ১৯০৪ সালে।
  • ’কোন এক বিধবা কামিনীর প্রতি’ বিখ্যাত কবিতাটির রচয়িতা – নবীনচন্দ্র সেন।
  • তাঁর প্রথম কবিতা – ‘কোন এক বিধবা কামিনীর প্রতি’।

নবীনচন্দ্র সেন এর জীবনী ও সাহিত্যকর্ম

  • ’কোন এক বিধবা কামিনীর প্রতি’ কবিতাটি প্রকাশিত হয় – তৎকালীন অন্যতম খ্যাতনামা পত্রিকা ‘এডুকেশন গেজেট’-এ।
  • ’অবকাশ রঞ্জনী’ কোন জাতীয় রচনা – কাব্যগ্রন্থ।
  • ’অবকাশ রঞ্জনী’ কাব্যগ্রন্থের রচয়িতা – নবীনচন্দ্র সেন।
  • তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ – ‘অবকাশ রঞ্জনী’।
  • বাংলা সাহিত্যে একমাত্র ত্রয়ী মহাকাব্যের রচয়ীতা – নবীনচন্দ্র সেন।
  • ’অবকাশ রঞ্জনী’ কাব্যগ্রন্থের প্রথম খন্ড প্রকাশিত হয় – ১২৭৮ বঙ্গাব্দের পহেলা বৈশাখ।
  • ’অবকাশরঞ্জনী’ কাব্যগ্রন্থের দ্বিতীয় খন্ড প্রকাশিত হয় – ২৯ জানুয়ারি, ১৮৭৮ সালে।
  • তাঁর তিনটি মহাকাব্য – ‘বৈরতক’ (১৮৮৭), ’কুরুক্ষেত্র’ (১৮৯৩), ‘প্রভাস’ (১৮৯৬)।
  • ’বৈরতক’ ’কুরুক্ষেত্র’, ‘প্রভাস’ এগুলোর নায়ক – কৃষ্ণ।
  • ত্রয়ী মহাকাব্যে বর্ণিত হয়েছে – বৈরতকে কৃষ্ণের আদি, কুরুক্ষেত্রে মধ্য এবং প্রভাসে অন্তলীলার কাহিনী বর্ণিত হয়েছে।
  • ছাত্রাবস্থায় কবি রচনা করেন প্যারীচরণ সরকার সম্পাদিত – এডুকেশন গেজেটে প্রকাশ।
  • ’আমার জীবন’ কোন জাতীয় রচনা – আত্মজীবনী।
  • ’আমার জীবন’ গ্রন্থের লেখক – নবীনচন্দ্র সেন।
  • তাঁর কাব্যের মৌলিক আবেদন – স্বাজাত্যবোধ ও স্বদেশানুরাগ।
  • ভগবদগীতা ও চন্ডীর কাব্য অনুবাদ করেন – নবীনচন্দ্র সেন।
  • তাঁর অন্যান্য কাব্যগ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য – ‘ক্লিওপেট্রা’(১৮৭৭), ‘ভানুমতি’(১৮৯৫), ‘রঙ্গমতী, (১৫ জুলাই,১৮৮০) ‘খ্রিষ্ট’ (১৮৯০), যীশুর জীবন অবলম্বনে, ‘অমিতাভ’ (বুদ্ধদেবের জীবন অবলম্বনে), ‘অমৃতাভ’ (শ্রী চৈতন্যের জীবন অবলম্বনে) প্রভৃতি।
  • ’পলাশীর যুদ্ধ’ কোন জাতীয় রচনা – ঐতিহাসিক আখ্যানকাব্য ।
  • তাঁর রচিত ‘পলাশীর যুদ্ধ’ ঐতিহাসিক আখ্যানকাব্য প্রকাশিত হয় – ১৮৫৭ সালে।
  •  বিশিষ্ট এই কবি মৃত্যুবরণ করেন – ২৩ জানুয়ারি, ১৯০৯ সালে।

Leave a comment

Your email address will not be published.