খরগোশ ও কচ্ছপের গল্প

খরগোশ ও কচ্ছপের গল্প

এক বনে খরগোশ আর কচ্ছপ পাশাপাশি বাস করত। দুইজনের মধ্যে বেশ বন্ধুত্বও ছিল। কিন্তু মাঝে মাঝে ঝগড়াঝাটি যে হতো না তা নয়।….খরগোশ খুব জোরে ছোটে। যেন বাতাসের আগেই ছুটে চলে।

আর কচ্ছপ? সে চলে ধীরে ধীরে হেলেদুলে।…….কচ্ছপের ওই হাঁটা দেখে একদিন খরগোশটি হেসে বলল, ‘তোমার হাঁটার যে ছিরি, দেখলেই হাসি পায়।’……ব্যঙ্গ করতে দেখে কচ্ছপটি গম্ভীর কণ্ঠে বলল, ‘এত হাসার কি আছে? চলো দৌড় প্রতিযোগিতায় নামি। দেখি কে জোরে ছুটতে পারে।’

প্রতিযোগিতা! হো হো করে হেসে উঠল খরগোশ।……..বলল, ‘প্রতিযোগিতা! তা কার সঙ্গে? তোমার সঙ্গে?’…….বলেই আবার হো হো করে হাসতে লাগল, ‘আচ্ছা, তুমি যখন নিজের মুখে বলছ তবে তো রাজি হতেই হয়। তাহলে কত দূর যাওয়ার প্রতিযোগিতা হবে? আর কখন শুরু হবে?’

কচ্ছপ বলল, ‘এখনই শুরু হবে। ওই অনেক দূরে ওই নদীর ধারে একটা অশ্বত্থ গাছ দেখা যাচ্ছে, দেখি ওইখানে কে আগে পৌঁছতে পারে?’………অতএব শুরু হয়ে গেল প্রতিযোগিতা।….খরগোশ এক দৌড়ে অনেকখানি এগিয়ে গেল। পেছনে ফিরে তাকিয়ে দেখতে পেল কচ্ছপ বলতে গেলে সেখানেই পড়ে আছে।

সেদিন রোদের তেজ ছিল বেশি। পাশেই গাছের নিচে একটু ছায়া দেখে খরগোশ ভাবল, ‘একটু বিশ্রাম নিলে ভালো হয়। এখানে পৌঁছতে কচ্ছপের অনেক দেরি আছে। একটু বিশ্রাম নেয়া যাক।’……..হঠাৎ ফুরফুর করে হাওয়া বইতে লাগল। গাছের ছায়ায় বসে মিষ্টি ফুরফুরে হাওয়ায় খরগোশের ঘুম পেয়ে গেল।…….খরগোশ কখন যে ঘুমিয়ে পড়ল তা নিজেই জানতে পারল না।

ওদিকে কচ্ছপ কিন্তু একটানা হেঁটে চলছিল। তেজি রোদ গ্রাহ্য না করে সে হেঁটে চলল।…..এদিকে বেলা পড়ে এল। খরগোশের ঘুম ভাঙল এবার।………..সে তখন আশপাশে তাকিয়ে কচ্ছপকে দেখতে না পেয়ে নদীর তীরের সেই অশ্বত্থ গাছটার দিকে ছুটতে থাকল।…..সেখানে পৌঁছে হাঁপাতে হাঁপাতে খরগোশ দেখল তার আগেই সেখানে কচ্ছপ পৌঁছে বিশ্রাম করছে।

 

গল্পের শিক্ষা : ধীর ও স্থির ব্যক্তিরাই প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *